মেয়ে হয়েও দুর্গা মূর্তি বানান এই শিল্পী

Video Description

মেয়ে হয়েও দুর্গা মূর্তি বানান এই শিল্পী পর পর মেয়ে হচ্ছিলো দেখে বাবা নাম রেখেছিলেন চায়না. মানে আর তারা কন্যা সন্তান চান না. কিন্তু তারা হয়তো তখন জানতেন না সেই অযাচিত সন্তানই একদিন হাল ধরবে সংসারের. বিধাতার এ এক অদ্ভুত খেলা. কুমোরটুলিতে প্রতিমা শিল্পী হেমন্ত পালের ষষ্ঠ এবং কনিষ্ঠতম সন্তান চায়না পাল. বাকি ভাই বোনেদের মতোই ছোটবেলা কেটেছে পড়াশুনা করেই. বাগবাজারের নিবেদিতা স্কুলে পড়াশুনা করতো চায়না. তার বাবা কখনোই তাকে এবং বাকি কন্যা সন্তানদের প্রতিমা তৈরির পারিবারিক ব্যাবসার কাজে ঢুকতে দেননি. কিন্তু ভাগ্যের ফেরে সেই মেয়েই আজ কুমোরটুলির অন্যতম বিখ্যাত এবং জনপ্রিয় প্রতিমা শিল্পী হিসাবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেছে. আজ প্রতিমা শিল্পী হেমন্ত পালের যোগ্য উত্তরসূরি হলো কন্যা চায়না পাল. পুজোর আর এক সপ্তাহ বাকি নেই. তাই নেওয়া খাওয়ার সময় নেই চায়নার. প্রচন্ড ব্যাস্ততার মাঝেও আমাদের শোনালেন তার জীবনের কথা. ১৯৯৪ সালে মারা যান চায়নার বাবা. কিন্তু অদ্ভুত ভাবে মারা যাওয়ার বছর খানেক আগে থেকে চায়নাকে প্রতিমা গড়ার ট্রেনিং দিতে শুরু করেন তিনি. বাবা হেমন্ত পাল মারা যাওয়ার পর আকাশ ভেঙে পরে চায়নার মাথায়. মাথার ওপরের বড়ো দাদারা তাদের পরিবারের এই প্রতিমা তৈরির ব্যাবসায় খুব একটা উৎসাহ দেখায় না. সংসারের হাল ধরতে ঢুকে পড়েন বাবার প্রতিমা তৈরীর স্টুডিওতে. আর এখন চায়নার তৈরী মা দুর্গার মূর্তি কলকাতা তো বটেই বিদেশেও পারি দিচ্ছে. এতটাই বায়না আসে পুজোর সময় যে ছেড়ে দিতে হয় বহু অর্ডার. কাজের দিক থেকে ভীষণ পেশাদার চায়না. সময় মতো প্রতিমা ডেলিভারি করাই এখন তার মূল লক্ষ্য. ধূসর অতীত ভুলে চায়না আজ সত্যিই দশভূজা. গোটা পরিবার আর স্টুডিওর বাকি কর্মীদের সংসারের দায়িত্ব আজ তারই কাঁধে. এখন চায়নাকে সবাই চায়.

Join more than 1 million learners

On Spark.Live, you can learn from Top Trainers right from the comfort of your home, on Live Video. Discover Live Interactive Learning, now.