'নেতাজি সুভাষচন্দ্র বোস' এর অনেক অজানা সত্য !

Video Description

নেতাজি সুভাষচন্দ্র বোস' এর অনেক অজানা সত্য ! এই নামটি শুনলেই আপামর ভারতবাসীর অহংকার আর গর্বে মন ভোরে ওঠে , তাকে নিয়ে যতই কথা বলা যাক কম হবে. তার জীবন সে দেশের জন্য উৎসর্গ করেছেন, তার জন্ম হয়েছে ২৩শে জানুয়ারী ১৮৯৭ সালে উড়িষ্যার কটকে , তিনি ছিলেন তার মা বাবার ন নম্বর সন্তান। তিনি ছেলেবেলা থেকেই যেমন বুদ্ধিমান তেমনি মেধাবী ছিলেন, তিনি তার বাবাকে কথা দিয়েছিলেন ইন্ডিয়ান সিভিল সার্ভিস পরীক্ষা পাশ করে দেখাবেন , তাই তিনি ইংল্যান্ড গিয়ে এই পরীক্ষা পাশ করেন , এমন কি তিনি চতুর্থ স্থান গ্রহণ করেছিলেন। কিন্তু নেতাজি কখনোই ইংরেজদেড় হয়ে কাজ করতে চাননি, তিনি ১৯২১ সালে সিভিল সার্ভিস থেকে সরে আসেন, তিনি তার একমাত্র স্বপ্নের দিকেই অটল ছিলেন - ভারতের স্বাধীনতা। দুষ্টের দমন করতে গিয়ে তিনি অনেক বার জেল খেটেছেন , একসময় জওহরলাল নেহেরুর সঙ্গে একজোট হয়ে স্বাধীনতার আন্দোলনে নেমে পড়েন, তিনি কলকাতার মেয়র ও হয়েছিলেন, এমন এক সময় ইংরেজদেড় সঙ্গে তার এক মিটিং ছিল সেখানে তিনি ছাতা নিয়ে গেছিলেন, কারণ তখনকার দিনে বাঙালির কাছে ছাতা এক গর্বের জিনিস ছিল. তখন ইংরেজ দলের একজন বলেছিলেন এখানে ছাতা নিয়ে আসার নিয়ম নেই , উনি তার প্রতিবাদে বলেছিলেন আমার নিজের দেশে আমি কি করবো সেটা কারোর থেকে পরামর্শ নেবোনা। তিনি তার জীবনে ১১ বার জেল খেটেছেন কিন্তু কখনো মাথা নত করেননি। গান্ধীজির সঙ্গে তার মতো বিপদ হতো কারণ গান্ধীজি ছিলেন অহিংসার পক্ষে আর নেতাজি বলতেন স্বাধীনতা কখনোই অহিংসা দিয়ে পাওয়া যাবেনা। তার জন্য লড়তে হবে লড়াই করতে হবে। নেতাজির এক অমূল্য ভাষণ ছিল- শত্রূর শত্রু মিত্র হয়. ভারতের স্বাধীনতার জন্য উনি জার্মানি ও জাপান থেকে সাহায্য নিয়েছিলেন , তার তৈরী করা আজাদ হিন্দ ফৌজ একমাত্র সংগঠন যারা ইংরেজ এর বিরুদ্ধে লড়াই করেছিল। একসময় ইংরেজরা ভয়ে পেয়েগেছিলেন এই ফৌজ এর ক্ষমতা দেখে তখুনি তারা সিদ্ধান্ত নান ভারত কে স্বাধীনতা দেওয়ার। ১৯৪৫ সালে তাইওয়ান এ এক প্লেন ক্র্যাশ এ নেতাজির মৃত্যু হয় আমরা জানি, এটা পুরোটাই রহস্যের, এখনো কারোর কাছে সঠিক তথ্য নেই যে তিনি কবে মারা গেছেন কারণ ১৯৪৫ সালের পরেও অনেকে তাকে দখেছিলেন এরকম উক্তি রয়েছে। ভারতের স্বাধীনতার এক অন্যতম নায়ক নেতাজী আমাদের সকল ভারতবাসীর গর্ব ছিলেন আছেন থাকবেন।

Join more than 1 million learners

On Spark.Live, you can learn from Top Trainers right from the comfort of your home, on Live Video. Discover Live Interactive Learning, now.