আত্মহত্যা থেকে কিভাবে বাঁচাবেন আপনার প্রিয়জনকে ?

Video Description

আত্মহত্যা থেকে কিভাবে বাঁচাবেন আপনার প্রিয়জনকে ? ন‌্যাশনাল মেন্টাল সার্ভে নামে জাতীয় একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে , ভারতে পশ্চিমবঙ্গ ও কেরলে সবচেয়ে বেশি সুইসাইডের ঘটনা ঘটে। টিনএজার ছেলেমেয়ে থেকে ৩০ বছর বয়সি দের আত্মহত‌্যার প্রবণতা তুলনামূলক বেশি। এছাড়া হঠাৎ আর্থিক অবস্থা খারাপ হলে, সংসার ভেঙে গেলে, বেশি আবেগপ্রবণ হলে, মদ বা ড্রাগসের মারাত্মক নেশা থাকলে সুইসাইড করার ঘটনা ঘটে। মনে হয় জীবন বড় বেরঙিন হয়ে গিয়েছে । বড্ড একা লাগছে। সমস‌্যার সমাধান খোঁজে পাচ্ছেন না। অনেকে ভাবেন যে মৃত্যুই সব সমস‌্যা, দুশ্চিন্তা, যন্ত্রণা, একাকীত্ব থেকে মুক্তি দেবে । কেউ ধীরে ধীরে সেটা ভাবেন । আরো কারও সেই সিদ্ধান্ত নিতে মাত্র কয়েক সেকেন্ড লাগে । তারপরই দ‌্য এন্ড। সমীক্ষা অনুযায়ী, যে ব‌্যক্তি আত্মহত‌্যার চেষ্টায় অসফল হন, তিনি নাকি আগামী তিন মাসের মধ্যে ফের সুইসাইডের চেষ্টা করেন। তাই এই সময়ের মধ্যেই সেই ব্যাক্তির আত্মহননের চিন্তা মাথা থেকে মুছে ফেলতে হবে।এটি করতে পারেন বাবা, মা, স্বামী, স্ত্রী, সন্তান, বন্ধু ও নিকটাত্মীয়রা। যদি কারও আত্মহত‌্যা করার চিন্তা মাথায় ঘোরে, তাহলে তা নিজের মনে গুমরে না রেখে কাউকে বলুন। নিকটাত্মীয়র সঙ্গে শেয়ার করতে না চাইলে সেটা কোনো বন্ধুকেও বলতে পারেন। এতে কিন্তু মানসিক হতাশা কিছুটা হলেও কমবে। একইসঙ্গে যিনি শুনলেন তিনিও তৎপর হয়ে বাড়ির বাকি লোকেদের সতর্ক করতে পারেন। যদি বুঝতে পারেন কেউ এমনটা ভাবছে তাহলে তাকে সেই রাস্তা থেকে সরিয়ে আনার চেষ্টা করুন। অনেকের ধারণা, আত্মহত‌্যার কথা সেই ব‌্যক্তিকে বারবার জিজ্ঞাসা করলে হয়তো তাঁর মনে সেটাই সারাক্ষণ ঘুরপাক খাবে।এ ধারণা আসলে ভুল। বরং তার সঙ্গে কথা বলে বোঝান যে আপনি তার কষ্ট, সমস‌্যাটা বুঝতে পারছেন। তাকে গুরুত্ব দিন। এতে সুইসাইডের প্রবণতা অনেকটা কমে। একবার আত্মহত‌্যার চেষ্টা করার পরে বা যে ব‌্যক্তির মধ্যে হাই সুইসাইডিয়াল রিস্ক আছে, তার উপরে কড়া নজর রাখতে হবে পরিবারের সদস‌্যদের। বাড়ির দু’জন লোক সব সময় ওই ব‌্যক্তির সঙ্গে এক ঘরে থাকুন। এমন প্রিয়জনরা থাকুন যাঁর সঙ্গে সে তার চিন্তাভাবনা শেয়ার করতে স্বচ্ছন্দ বোধ করবে। ওই ব‌্যক্তির হাতের কাছে ধারালো বস্তু, দড়ি বা আঘাত লাগলে ক্ষতি হতে পারে এমন কিছু রাখবেন না। ছাদ বা এমন কোনও জায়গা থেকে পড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকলে সেদিকে যেতে দেবেন না। তাকে সবসময় কোনও কাজ দিয়ে ব‌্যস্ত রাখুন। আশা করছি বুঝতে পারছেন কিভাবে প্রিয়জনকে বাঁচাতে হবে আত্মহত‌্যা করার হাত থেকে। এবার প্লিজ ভিডিওটি লাইক এবং শেয়ার করে দিন।

Join more than 1 million learners

On Spark.Live, you can learn from Top Trainers right from the comfort of your home, on Live Video. Discover Live Interactive Learning, now.