ভাত খেলেও নাকি ওজন কমবে ?

Video Description

ভাত খেলেও নাকি ওজন কমবে ? বর্তমানে সকলের মনে এক বদ্ধমূল ধারণা হলো ভাত খেলে ওজন বাড়ে , কিন্তু ভেতো বাঙালির পক্ষে ভাতের মায়া কাটানো একেবারেই সহজ কাজ নয়। ভাতে নানান পুষ্টিগত উপাদান থাকে- ১০০ গ্রাম ভাতে ৩৪০ কিলো ক্যালোরি শক্তি উৎপন্ন হয়, এতে প্রায় ৮ গ্রাম ফ্যাট , ৭৮ গ্রাম ফাইবার , ৫ গ্রাম কার্বোহাইড্ৰেট ও অনান্য আরো অনেক উপকারী উপাদান থাকে। কিন্তু এর সাথে থাকে স্টার্চ যা শরীরের গ্লুকোজকে বিশ্লেষিত করে অগ্নাশয়ের কাজ ব্যাহত করে। রক্তে ইনসুলিন এর পরিমান বাড়িয়ে দেয়। আবার ১০০ গ্রাম আটাতেও ভাতের সমপরিমাণ ক্যালোরি থাকে, তাই দুবেলা মিলিয়ে যদি ১৫০ গ্রাম ভাত খান, তাহলেও তা ৫০০ কিলো ক্যালোরির বেশি হয়না । রোজ যাতে ২০০০ কিলো ক্যালোরি সংগ্রহ করতে পারেন সেইদিকে নজর দিন. ভাতের সাথে সালাড ,স্যুপ ,মাছ ইত্যাদি খেয়ে খাবারের সুষমতা বজায় রাখুন তাহলে অতিরিক্ত মেদ বৃদ্ধি হবেনা। পেটে ভাত পড়লে মস্তিষ্কে এক সুখানুভূতি সৃষ্টি হয় যা ঘুমের আবেশ নিয়ে আসে, যার ফলে ভাত খাবার পর ঘুমের চাহিদা শরীরে বেড়ে যাই. ব্যবহার ও কৌশলের দিক থেকে কোনো জিনিসের দোষ গুন নির্ভর করে, ভাতও তার বেতিক্রম নোই। ভাতের উপকারী দিক দেখে সেই অনুযায়ী ডায়েট মেইনটেইন করুন - ভাতে ট্রান্স ফ্যাট বা স্যাচুরেটেড ফ্যাট নেই , তাই কোলেস্টরল বাড়ার কোনো ভয় নেই । ভাত হলো লো ফ্যাট ও হাই কার্ব সমৃদ্ধ ফ্রি ফুড , যাতে সোডিয়াম ,গ্লুটেন জাতীয় ক্ষতিকারক পদার্থ থাকেনা, ভাত হিসেবে ঢেকিছাটা চাল বাছুন , এটা সাধারণ polished চালের তুলনায় বেশি পুষ্টিগুণ থাকে। ভাত রান্নাকরার কিছু নিয়ম আছে- চাল বারবার ধোবেননা । তাতে তার ভিটামিন ও মিনারেল নিষ্কাশিত হয়ে যায়। কম জল দিয়ে হাড়িতে ভাত বসান, ফ্যান গালবেননা, চাইলে ফোটানো জলে ভেজা চাল ও দিতে পারেন। ঢাকা দিয়ে স্টিমে রান্না করুন, ও ধীরে ধীরে ঠান্ডা করুন, এতে স্টার্চ জমাট বাধবে ও অল্প খেলেই পেট ভোরে যাবে। ভাত খাবার পরেই শুয়ে পরবেননা , ১৫-২০ মিনিট হাঁটাচলা করুন, এতে ঘুম ও কেটে যাবে আর ইনস্ট্যান্ট ফ্যাট জমার সুযোগ থাকবেনা। ভাত ঘুম কাটানোর জন্য ভাত খাবার পর ব্ল্যাক কফি খেতে পারেন।

Join more than 1 million learners

On Spark.Live, you can learn from Top Trainers right from the comfort of your home, on Live Video. Discover Live Interactive Learning, now.