করোনাভাইরাস নিয়ে আতঙ্কে রয়েছেন?

Video Description

করোনাভাইরাস নিয়ে আতঙ্কে রয়েছেন? এই রোগের সূত্রপাত চিনে হলেও বিশ্বের নানা দেশে ছড়িয়ে পড়ছে তার আতঙ্ক , করোনাভাইরাস। চীনের জাতীয় সাস্থ সংস্থার হিসেবে বলছে মঙ্গলবার পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা চাপিয়েছে ১৩০. আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ৩০০০ ছাড়িয়েছে। শুধু চিনেই নয় এই ভাইরাস ছড়িয়েছে - তাইল্যান্ড , সিঙ্গাপুর , ভিয়েতনাম , তাইওয়ান , জাপান , দক্ষিণ কোরিয়া , নেপাল ও মালয়শিয়াতে। সংক্রমণের আতঙ্কে কাঁপছে ভারত ও। এর উৎস কি থেকে ? এই ধরণের ভাইরাস এর উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায় fruit bat দেড় শরীরে। চিনে এই ধরণের বাদুড় সুপ রান্নার অন্যতম উপকরণ হিসবে ব্যবহার হয়, বাদুড় খায় এমন সাপের শরীরেও এই ভাইরাস ঢুকে যায়। সেই সাপ চিনে মাছের বাজারে বিক্রি হয়, সাপ ও সেখানকার জনপ্রিয় একটি খাদ্য। তেমন সাপ খেলেও শরীরে প্রবেশ করতে পারে করোনাভাইরাস। এই ধরণের বাদুড় বা সাপ খাবার সময় শাঁসের মাধ্যমে এই ভাইরাস মানবদেহে প্রবেশ করে। নাক মুখ দিয়ে এই ভাইরাস প্রবেশ করার পর শ্বাসতন্ত্রের যে কোনো একটি কোষকে টার্গেট করে। এই খোশটি ফুলেফেঁপে ওঠে শেষে এক সময় কোষটি ফেটে ভাইরাসকে উগরে দায় বাইরে ,তখন সব কোটা কোষএই তা ছড়িয়ে পরে। করোনাভাইরাস এর উপসর্গ ঠিক কেমন? চিকিৎসকদের মতে এই ভাইরাসের প্রধান ও অন্যতম উপসর্গ হলো সর্দি কাশি ও বুকে কফ্ জমে থাকা। সাধারণত কোনো প্রকার ওষুধ এই শ্লেষা না সারলে 'পিসিআর' পরীক্ষা করে এই ভাইরাসে অস্তিত্ব খোঁজা হয়. সর্দি কাশি দিনের পর দিন না সারলেই মারাত্মক জ্বর শুরু হয় এই ভাইরাসের প্রকোপে, মাথা যন্ত্রনা গলা বেথা এইগুলো লক্ষণ হয়ে থাকে। ভারতে ঐসকল পশু খাবার চল না থাকলেও বন্য জন্তু বা মাংস খাওয়া হয়, এমন পশু পাখিদের ছোয়ার ক্ষেত্রেও সতর্কতার কথা বলা হচ্ছে। যদিও মাংস খাবার ক্ষেত্রে এখনই কোনো বাধা নিষেদ নেই তবে রান্নার সময় সুসেদ্ধ করে তবেই খাওয়া উচিত। আপাতত প্যাকেটজাতীয় মাংস না কেনার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞেরা।

Join more than 1 million learners

On Spark.Live, you can learn from Top Trainers right from the comfort of your home, on Live Video. Discover Live Interactive Learning, now.