PCOS- এর জন্য উপযুক্ত ডায়েটগুলি কি কি? (What are the diets suitable for PCOS?)

বর্তমানে অধিকাংশ মহিলাই পলিসিস্টিক ওভারি সিন্ড্রোম অর্থাৎ PCOS-এর সমস্যায় ভুগছেন। খাবারে অতিরিক্ত রাসায়নিকের প্রয়োগ, অনিয়মিত জীবনযাপন, স্ট্রেস, হরমোনাল ইমব্যালান্স, শরীরচর্চা না করা এবং আরও নানা কারণে এই সমস্যা দেখা যায়। কিন্তু গবেষণায় দেখা গেছে যে- বেশিরভাগ মহিলাই এই সমস্যাকে সঠিক গুরুত্ব দেননা এবং পরবর্তীকালে এটি এক বড় আকার ধারন করে। নিয়মিত ওষুধ খাওয়াটা যেমন প্রয়োজন, ঠিক তেমনি PCOS-এর সমস্যা সমাধানের জন্য একটা নির্দিষ্ট ডায়েট মেনে চলাও কিন্তু খুব গুরুত্বপূর্ণ।

PCOS থাকলে অন্যান্য শারীরিক সমস্যার সাথে কিন্তু প্রেগনেন্সিতেও অনেক রকম সমস্যা দেখা দিতে পারে এমনকি কনসিভ করতেও সমস্যা হতে পারে। আপনারও যদি পলিসিস্টিক ওভারি সিন্ড্রোম থেকে থাকে তাহলে আপনি নিম্নলিখিত ডায়েট ফলো করলে অনেক উপকার পেতে পারবেন, আসুন একটু দেখে নেওয়া যাক।

১) কম কার্বোহাইড্রেট যুক্ত খাবার খেতে হবে

আপনার যদি PCOS-এর সমস্যা থাকে তাহলে লো-কার্ব খাবার বা কম কার্বোহাইড্রেটযুক্ত খাবার অর্থাৎ যে খাবারে কার্বোহাইড্রেট কম থাকে সেই ধরনের খাবার খেতে হবে। এর ফলে আপনার শরীরে ইন্স্যুলিন লেভেল বাড়বে না এবং অযথা ওজনও বাড়বে না। সাদা ভাত, আলু, ময়দা, তরমুজ, কর্ণফ্লেক্স ইত্যাদি না খাওয়াই ভালো। মাল্টিগ্রেইন ব্রেড, সয়াবিনের দুধ, ওটস, আপেলের রস, আনারস, লো-ফ্যাট দই, ম্যুসলি, গাজর ইত্যদি খাওয়া ভালো শরীরের পক্ষে ভালো ফল দেবে।

আরও পড়ুন-ওজন কমানোর জন্য সঠিক ডায়েট হল অন্যতম সহজ পথ (Proper diet is one of the easiest ways to lose weight)

২) মিষ্টি কম খেতে হবে

চিনি না খেলেই ভালো, অনেকেই আছেন চিনি ছাড়া চা খেতে পারেন না। তারা কিন্তু একটা কাজ করতে পারেন, গ্রিনটি খান এবং চিনির বদলে মধু দিয়ে খান। যদি বাড়িতে কোন মিষ্টি তৈরি করতে হয় তাহলে চিনির বদলে গুড় দিয়ে করুন। এছাড়া মিষ্টি, আইসক্রিম, চকলেট, নরম পানীয় যতটা পারেন এড়িয়ে চলার চেষ্টা করুন। শুধু PCOS-এর সমস্যা বলে নয় শরীরকে সুস্থ্য রাখতে খাদ্যতালিকা থেকে মিষ্টি বা চিনির মাত্রা কমাতে ভুলবেন না

৩) খালি পেটে দীর্ঘক্ষণ থাকবেন না

আজই লগ-ইন করুন-https://spark.live/bengali/consult/

পলিসিস্টিক ওভারি সিন্ড্রোমে যেহেতু ওজন নিয়ন্ত্রনে রাখাটা ভীষণ জরুরি, তাই অনেকেই ভাবেন যে না খেয়ে থাকলে বুঝি ওজন কমাতে পারবেন। কিন্তু এই ধারনা একেবারেই ভুল। না খেয়ে থাকলে ওজন কমবেনা, শুধুই শারিরিকভাবে আপনি অতিরিক্ত দুর্বল হয়ে পড়বেন। পুষ্টিকর খাবার খান যাতে পুষ্টিও পাবেন আবার ওজনও বাড়বে না। যেমন, ডাল, শাক সবজি, ফল এসব রাখুন আপনার রোজকার ডায়েট প্ল্যানে এবং তার সঙ্গে এক্সারসাইজ করতে কিন্তু ভুললে চলবেনা।

৪) দুধ বা দুগ্ধজাত খাবার কম খেতে হবে

গরুর দুধ বা দুগ্ধজাত খাবার না খেলে খুবই ভালো, একান্তই যদি খেতে হয় তাহলে যতটা সম্ভব কম খেলে ভালো। গরুর দুধের বদলে নারকলের দুধ, আমন্ড দুধ, সোয়াবিনের দুধ এগুলি খেতে পারেন।

৫) প্রসেসড ফুড একেবারেই নয়

PCOS অথবা পলিসিস্টিক ওভারি সিন্ড্রোমে কিন্তু ডায়েটের মধ্যে প্রসেসড ফুড যেমন হ্যাম, সসেজ, চিজ, যেকোনো ক্যানড খাবার একেবারেই চলবে না, এই খাবারগুলিতে চিনি, ফ্যাট, প্রিজারভেটিভ এবং অতিরিক্ত পরিমানে সোডিয়াম থাকে যা এমনিতেই শরীরের পক্ষে ক্ষতিকর। আর PCOS থাকলে এই পদার্থগুলি সেই সমস্যাকে আরও বাড়িয়ে তোলে।

নিজেদের ডায়েটের সমস্যা সমাধান করলে তবেই PCOS-এর মতো হরমোনাল সমস্যাও ধীরে ধীরে কমতে শুরু করে। ডায়েটের যেকোনো সমস্যায় সঠিক পরামর্শ নেওয়ার জন্য Spark.Live এর বিশিষ্ট ডায়েটিশিয়ানদের সঙ্গে যোগাযোগ করে নিতে পারেন-https://spark.live/dietician-nutritionist-consultation/

Spark.Live এর বিশিষ্ট ডায়েটিশিয়ান সঙ্গীতা লাহিড়ীর সঙ্গে অনলাইন কন্সালটেশনের জন্য লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/food-and-nutrition-counseling-by-dietician-sangeeta-lahiri-bangla

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।