মনকে আনন্দে ভরিয়ে রাখতে গানের কোনো বিকল্প হয়না (There is no substitute for music to keep the mind happy)

মনখারাপের বিকেল হোক বা একলা রাত জাগা, সঙ্গী হয়তো সেই গানই। বহুবার শুনেছেন যে গান, তা কখনও নতুন করে শুনতে ইচ্ছে করে। কখনও বা নতুন গান বাঁচার রসদ জোগায়। নতুন গান সব সময়ই শ্রোতাদের পছন্দের তালিকায় থাকে। আর তা যদি অরিজিনাল হয়, তো উপরি পাওনা। মানুষের মন ও আবেগের ওপর গানের প্রভাব অনেক বেশি। পছন্দের কোনো গান শুনলে অতি সাধারণ একটি দিনও ভালো হয়ে যেতে পারে। যাঁরা গান শুনতে বা গাইতে পছন্দ করেন, তাঁদের গান ছাড়া যেন দিনই কাটে না।

গান মনকে শান্ত করে

Spark.Live এ স্বনামধন্য সংগীতশিল্পী সাগরিকা ভট্টাচার্যের সঙ্গে অনলাইন সেশনের জন্য লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/learn-indian-and-western-music-and-how-to-perform-onstage-with-sagarika-bhattacherjee-bengali

বিশেষজ্ঞদের মতে- প্রত্যেক মানুষের আলাদা আলাদা পছন্দের বিষয় থাকে। গান তেমনই একটি বিষয়। যাঁরা গান পছন্দ করেন, গান শুনলে তাঁদের ভালো লাগে। অনেকে গানের মাঝেই শক্তি ও উদ্যম খুঁজে পান। আবার অনেকে গানকে তাঁর নিঃসঙ্গতার সঙ্গী করে নেন। গান শুনলে বোধ হয় ভালো লাগে অনেকেরই। তবে শুধু ভালো লাগানো ছাড়াও গানের আরও গুণ আছে। মানুষের শারীরিক ও মানসিক সমস্যা দূর করতে গান কাজ করে ওষুধের মতোই।

গান দুঃশ্চিন্তা ও ধকল থেকে মুক্তি দেয়

বিভিন্ন রিসার্চ দ্বারা জানা গেছে যে- গান মানুষের দুশ্চিন্তা, যেকোনো শারীরিক ও মানসিক ধকল সামলাতে সাহায্য করে। বাস্তবজীবনে চাকরি, সংসার, সম্পর্কসহ নানা কিছু নিয়ে আমাদের দুশ্চিন্তা ও ধকল চলতেই থাকে। তখন গানের সুর, বাজনা, ছন্দ ও গানের কথা মনকে স্থির করতে সাহায্য করে। তাই অনেক গবেষণায় গানকে রিলাক্সেশনের একটি অংশ হিসেবে দেখা হয়।

গান মস্তিষ্কের অনুশীলন করায়

মস্তিষ্কের অনুশীলন বা ব্যায়াম হয় গান শুনলে। যাঁরা গান গাইতে পারেন, তাঁদের ক্ষেত্রে এটি আরও ভালো কাজ করে। মস্তিষ্কের যে অংশ মানুষের রাগ, দুঃখ বোধ, আনন্দবোধের মধ্যে সামঞ্জস্য স্থাপন করে, গান শুনলে সেই অংশগুলোর সক্ষমতা বাড়ে। সেই কারণে গান মস্তিষ্কে রক্ত সঞ্চালন ও মস্তিষ্ককে সুস্থভাবে কাজ করতে সাহায্য করে। অক্সিটোসিন হরমোনকে সঞ্চালিত করে। যেটি মানুষের সম্পর্কের ক্ষেত্রে আস্থা ও বিশ্বাস রাখতে সাহায্য করে।

গানের দ্বারা মানসিক শান্তি মেলে

Spark.Live এ স্বনামধন্য সংগীতশিল্পী সাগরিকা ভট্টাচার্যের সঙ্গে অনলাইন সেশনের জন্য লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/learn-indian-and-western-music-and-how-to-perform-onstage-with-sagarika-bhattacherjee-bengali

গান মানুষকে আশাবাদী করে তোলে। মানসিক শক্তি জুগিয়ে নিজের আবেগের ওপর নিয়ন্ত্রণ বজায় রাখতে সাহায্য করে। যাঁরা সিদ্ধান্তহীনতায় ভোগেন, তাঁদের মানসিক স্থিতি আনতেও গান ভূমিকা রাখতে পারে। গান চিন্তাশক্তি বাড়াতে ও মনোযোগী হতেও সাহায্য করে। গানের সঙ্গে মানব মনের গভীর যোগসূত্র আছে। তাই মানসিক অবস্থা বুঝে গান নির্ধারণের পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা। যখন মন কোনো কারণে অস্থির বা বিষন্ন থাকে, তখন দুঃখের গান না শোনাই ভালো। কারণ এটি মনকে আরও বিষাদগ্রস্ত করে দিতে পারে। তাই এই সময়ে মনকে উজ্জীবনকারী আনন্দের গান শুনলে ভালো লাগবে।

গান শুনতে তো আমরা সকলেই ভালোবাসি কিন্তু গান গাইতে কজন পারি বলুনতো? গান গাইতে পারার মধ্যে যে এক অনাবিল আনন্দ রয়েছে তা আর অন্য কোনো কিছুতে খুঁজে পাওয়া যায়না। সব থেকে মজার বিষয়টি হল গান শেখার কোনো নির্দিষ্ট বয়স হয়না শিশু থেকে প্রৌঢ় যেকোনো বয়সেই গানের তালিম নেওয়া শুরু করা যেতে পারে, প্রয়োজন শুধু সংগীতের সঠিক গাইডেন্সের।

স্বনামধন্য সংগীতশিল্পী সাগরিকা ভট্টাচার্য

Spark.Live এ আমাদের সঙ্গে রয়েছেন স্বনামধন্য সংগীতশিল্পী সাগরিকা ভট্টাচার্য। দীর্ঘ ১০ বছর ধরে উনি সংগীত জগতের এক চেনা মুখ। বহু ছাত্র ছাত্রীকে দক্ষতার সঙ্গে উনি সংগীতের শিক্ষা প্রদান করে চলেছেন, সাগরিকা যেমন পুরোনো গানের চর্চা করেন তেমনি নতুন সব ধরণের গানের চর্চা করেন এবং সেগুলো শিখিয়ে থাকেন। দীর্ঘ দিন ধরেই ওনার একটি YouTube চ্যানেল রয়েছে এবং বহু মানুষের তার ভিডিও দেখে গানের উপর নতুন করে ভালোবাসা তৈরী হচ্ছে। এক লক্ষেরও বেশি সাবসক্রাইবার রয়েছে সাগরিকার চ্যানেলের। সব রকম বয়সের মানুষকেই তিনি খুব সহজে সুন্দর ভাবে গানের তালিম দিয়ে থাকেন। এবার থেকে সঙ্গীতশিল্পী সাগরিকা ভট্টাচার্য থাকছেন Spark.Live এ, আপনারা সকলেই ওনার সঙ্গে অনলাইন সেশনের মাধ্যমে গানের বিভিন্ন ধারা নিয়ে চর্চা করতে পারেন এবং মনকে আনন্দে ভরিয়ে রাখতে পারেন খুব সহজেই।

Spark.Live এ স্বনামধন্য সংগীতশিল্পী সাগরিকা ভট্টাচার্যের সঙ্গে অনলাইন সেশনের জন্য লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/learn-indian-and-western-music-and-how-to-perform-onstage-with-sagarika-bhattacherjee-bengali

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।