আমাদের জীবনে আবেগের উপর সংগীতের নানান প্রভাব (The various effects of music on emotions in our lives)

সংঙ্গীত পছন্দ করে না এমন মানুষ পৃথিবীতে খুঁজে পাওয়া কঠিন। সঙ্গীত আমাদের জীবনের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। হোক তা ধীর লয়ের রবীন্দ্রসঙ্গীত অথবা হাই টেম্পোর কানফাটানো মেটাল গান। সঙ্গীতের সাথে সাথে পরিবর্তন হয় আমাদের আবেগ অনুভূতিও। সঙ্গীত আমাদের মাঝে যে পরিবর্তনগুলো এনে দেয় তা আসলে বেশ গুরুত্বপূর্ণ। এর সাথে সংযোগ আছে আমাদের মানসিক ও শারিরিক সুস্থতার। এমনকি সঙ্গীতের সাথে যোগাযোগ থাকলে শিশুরা বেড়ে ওঠে অনেক ভালোভাবে এবং প্রাপ্তবয়স্কদেরও পড়াশোনাসহ জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে সাহায্য করে থাকে সঙ্গীত।

সংগীতের নানান প্রভাব

আমাদের মস্তিষ্কের বিভিন্ন অংশে প্রভাব ফেলে সঙ্গীতের বিভিন্ন অংশ। স্বরের ওঠানামা, সুর এবং গানের কথা একেকটি একেক স্থানকে প্রভাবিত করে এবং এভাবে অন্য কোন কাজের চাইতে সঙ্গীত মানুষের মস্তিষ্কের সবচাইতে বেশি স্থান জুড়ে কাজ করে। নিয়মিত গান শুনলে ভাষাগত দক্ষতা বাড়ে, উন্নতি হয় সৃজনশীলতার এবং আমাদেরকে এটি হাসিখুশি রাখে। বিষণ্ণতা কাটিয়ে উঠে আশাবাদী করে তোলে আমাদেরকে। মানসিক প্রশান্তি এনে দেয় এবং আরোগ্যলাভের প্রক্রিয়া তরান্বিত করে। আলঝেইমারস, পারকিনসন্স, টরেটস ডিজিজ এবং অটিজম এর মত স্নায়বিক রোগের উপশম করতে পারে সঙ্গীত।

মস্তিষ্কের উপর সংগীতের প্রভাব

Spark.Live এ সঙ্গীত শিল্পী সুদেষ্ণা দাসের সঙ্গে অনলাইন ক্লাস বুক করার জন্য লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/learn-classical-modern-rabindra-sangeet-and-voice-training-with-singer-sudeshna-das-bengali

মস্তিষ্কের নিজস্ব তরঙ্গগুলোর মাঝে আছে আলফা, বেটা, গ্যামা, ডেলটা এবং থেটা তরঙ্গ। এদের কারনে তৈরি হয় বিভিন্ন আবেগঅনুভুতি এবং প্রতিক্রিয়া। আলফা তরঙ্গ সেরোটোনিন নিঃসরণে ভূমিকা রাখে, মনোযোগ বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখে দুর্বল বেটা তরঙ্গ কিন্তু শক্তিশালী বেটা তরঙ্গের উপস্থিতি তৈরি করতে পারে অযাচিত মানসিক চাপ। মানসিক ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে পারে গ্যামা তরঙ্গ এবং এর উপস্থিতি রয়েছে মস্তিষ্কের সর্বত্র। থেটা তরঙ্গ দেখা যায় ঘুমের রেম পর্যায়ে এবং ডেলটা তরঙ্গ দেখা যায় খুব গাড় ঘুমের সময়ে যেটা প্রাপ্তবয়স্কদের মাঝে বিরল। এসব বিভিন্ন তরঙ্গের সাথে মিল রেখে একই রকম তরঙ্গ সম্বলিত সঙ্গীত শুনলে সেই রকমের আবেগ এবং প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করা যায়।

শিক্ষাক্ষেত্রে সংগীতের নানান রূপ

শিক্ষাক্ষেত্রেও সঙ্গীতের প্রভাব কম নয়, দেখা যায়, মিউজিক পারফরম্যান্স এবং মিউজিক অ্যাপ্রিসিয়েশন কোর্সে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীরা অন্যদের থেকে অনেকগুণ ভালো ফলাফল করছে স্যাট পরীক্ষায়। তারা শিক্ষাক্ষেত্রে পাচ্ছে বিভিন্ন অ্যাওয়ার্ড এবং সম্মাননা। এছাড়াও তাদের মাঝে সহিংসতার প্রবণতা অপেক্ষাকৃত কম অন্যদের থেকে।সংঙ্গীত মানুষিক ক্লান্তি দূর করে ব্রেইনকে রাখে রিফ্রেস। তাই অনেক শিক্ষার্থী‌ মিউজিকের সাথে অংক করতেও বেশ উপভোগ করে থাকে।

শিশুদের জীবনে সংগীতের ভূমিকা অসীম

Spark.Live এ সঙ্গীত শিল্পী সুদেষ্ণা দাসের সঙ্গে অনলাইন ক্লাস বুক করার জন্য লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/learn-classical-modern-rabindra-sangeet-and-voice-training-with-singer-sudeshna-das-bengali

প্রাপ্তবয়স্কদের পাশাপাশি শিশুদের জীবনেও সঙ্গীতের ভূমিকা বর্ন‌নাতীত। মনে হতে পারে যে শিশুরা হয়তো ভালো সঙ্গীতের কিছুই বোঝে না। আর তাছাড়া সংঙ্গীতের পিছনে সময় নষ্ট না করে পড়াশুনা করাই উচিত। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে শিশুদের বেড়ে ওঠায় সক্রিয় ভূমিকা রাখতে পারে সঙ্গীত। সঙ্গীতের প্রভাবে মস্তিষ্কের এমন কিছু অংশ উদ্দীপ্ত হয় যেগুলো পড়াশোনার সাথে সম্পর্কিত। অল্প বয়সে সঙ্গীতের চর্চা থাকলে তাতে স্মৃতিশক্তির উন্নতি ঘটে। সঙ্গীত শেখে যে সব শিশু তাদের মাঝে টিমওয়ার্ক এবং শৃঙ্খলার উন্নতি ঘটতে দেখা যায়। সঙ্গীতের মাধ্যমে নিজেকে প্রকাশ করতে শেখার মাধ্যমে বৃদ্ধি ঘটে তাদের আত্মবিশ্বাস এবং সৃজনশীলতার। আর তাই সংঙ্গীতকে অন্য সব শিল্পের মতো শুধু বিনোদন হিসেবে বিবেচনা করা উচিত হবে না। এজন্যই বুঝি অনবদ্য বিজ্ঞানী আইনেস্টাইন স্বয়ং বলেছিলেন আমি বিজ্ঞানী নাহলে মিউজিসিয়ান হতাম।

সঙ্গীত শিল্পী ও সঙ্গীত শিক্ষিকা সুদেষ্ণা দাস

একজন অসামান্য প্রতিভাসম্পন্ন সঙ্গীত শিল্পী সুদেষ্ণা দাস, তার সম্পর্কে বলে বোঝানো একটু মুশকিল কারণ তার সুরেলা কণ্ঠ না শুনলে আপনারা উপলব্ধি করতে পারবেননা সঙ্গীতের কি অসীম শক্তি। সঙ্গীত যে মানুষকে কতটা ভালো রাখতে পারে তার সন্ধান পেয়ে যাবেন সঙ্গীত শিল্পী ও শিক্ষিকা সুদেষ্ণার কাছে। শিল্পী সুদেষ্ণা দাস বেনারস ঘরানা এবং রবীন্দ্রাভারতি ইউনিভার্সিটি থেকে ক্লাসিক্যাল মিউজিকের শিক্ষা অর্জন করেছেন। তিনি ওয়েস্ট বেঙ্গল স্টেট মিউজিক একাডেমী এবং বঙ্গীয় সঙ্গীত পারিষদ থেকেও সঙ্গীত নিয়ে ট্রেনিং নিয়েছেন। সঙ্গীতের মাধ্যমে তিনি বহু মানুষের মন অর্জন করে চলেছেন, তিনি বহু অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে মানুষের মনোরঞ্জন করেন। বহু ছাত্র ছাত্রীরা তার কাছে সঙ্গীতের শিক্ষা নিয়ে প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন। সর্বোপরি নিজেদেরকে আনন্দে রাখা এবং সকলের মাঝে সঙ্গীতের প্রকৃত মূল্য তুলে ধরাই হল শিল্পী সুদেষ্ণার একমাত্র লক্ষ্য। বর্তমানে Spark.Live এ তিনি অনলাইন সেশনের মাধ্যমে আপনাদের সকলের আরও কাছাকাছি পৌঁছতে পেরেছেন, আপনারা তার কাছে সঙ্গীতের গোড়া থেকে শিক্ষা অর্জন করতে পারেন।

Spark.Live এ সঙ্গীত শিল্পী সুদেষ্ণা দাসের সঙ্গে অনলাইন ক্লাস বুক করার জন্য লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/learn-classical-modern-rabindra-sangeet-and-voice-training-with-singer-sudeshna-das-bengali

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।