সঠিক ডায়েটের মধেই লুকিয়ে রয়েছে সুস্বাস্থ্যের সন্ধান ( The search for good health is hidden in the right diet )

আপনাদের ডায়েট সম্পর্কিত সকল সমস্যার সমাধানে এবার থেকে Spark.Live এ থাকছেন স্বনামধন্য ডায়েটিশান তথা ক্রিটিকাল কেয়ার স্পেশালিস্ট কোয়েল পাল চৌধুরী।https://spark.live/consult/nutrition-tips-from-koyel-pal-chowdhury-to-make-your-diet-healthier/

বর্তমানে আমরা কম বেশি সকলেই মূলত যে সমস্যায় ভুগছি তা হলো- ওজন বৃদ্ধি। অনিয়ন্ত্রিত জীবন যাত্রার ফলস্বরূপ স্থুলতা খুবই স্বাভাবিক সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে, তবে স্থুলতা অবশ্যই ভালো স্বাস্থ্যের লক্ষন নয় । ভালো স্বাস্থ্য মানে সুস্থ একটি দেহ ও প্রফুল্ল মন। আর সুস্থ শরীরের জন্য দেহের ওজন সঠিকভাবে নিয়ন্ত্রন করতে হয়। বডি মাস ইনডেক্স বা BMI হিসাব করে ওজন বেশি-কমের সঠিক ধারনা পাওয়া যায়। আর ওজন বেড়ে গেলে তা অবশ্যই কমিয়ে সঠিক মাত্রায় আনা উচিত। কিন্তু তার জন্য প্রয়োজন হয় ডিটার্মিনেশনের যা সবসময় আমরা জুগিয়ে উঠতে পারিনা, নিজেদের লাইফ স্টাইল চেঞ্জ করেও অনেক সুস্থ সুন্দর হয়ে ওঠা সম্ভবপর হয়।

শরীরের অতিরিক্ত ওজন কমানোর জন্য স্বাস্থ্য সচেতনরা কতকিছুই না করে থাকেন। বিশেষ করে পরিমিত পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ করে ডায়েট কন্ট্রোল করাই হলো অন্যতম একটি উপায়। শরীরের বাড়তি ওজন কমানোর জন্য সঠিক ডায়েট বেশ কার্যকর। তবে ডায়েট করতে হবে নিয়মকানুন মেনে, জেনে-বুঝে পুষ্টিবিদের পরামর্শ অনুযায়ী। নয়তো কাঙ্ক্ষিত সুফল পাওয়া যাবে না ও ওজন কমাতে গিয়ে অসুস্থ হয়ে পড়তে পারি আমরা সকলেই। ওজন কমানোর মূল কারণ হলো শরীরকে সুস্থ্য করে তোলা, সেই কারণে সঠিক পরিমানে পুষ্টির প্রয়োজন।

প্রথমের আমাদের সকলকে মনে রাখতে হবে ডায়েট মানেই কিন্তু না খেয়ে থাকা নয়। ডায়েট মানে সঠিক পরিমাণে সুষম খাবার খাওয়া । ডায়েটে পুষ্টিকর খাবার সঠিক পরিমাণে গ্রহণ না করলে কিংবা শুধু কম খেয়ে থাকলে শরীরের ওপর এর প্রভাব বিপরীত পড়তে পারে । ওজন কমানোর প্রয়োজন থাকলে কিংবা নির্দিষ্ট ওজন ধরে রাখতে চাইলে অবশ্যই বয়স, ওজন, উচ্চতা এবং কতটুকু ওজন কমাতে হবে সেই অনুযায়ী ডায়েট চার্ট তৈরি করতে হবে। ওজন কমানোর গিয়ে অনেক সময় খাদ্যে ক্যালসিয়াম ও লোহার অভাব ঘটতে পারে। এক্ষেত্রে ডিম ও কলিজা লোহার চাহিদা পূরণ করবে। চেষ্টা করবেন লবণবর্জিত খাদ্য গ্রহণ করতে।

মিষ্টি শরবত, কোল্ড ড্রিঙ্কস ইত্যাদি মৃদু পানীয়, সব রকম মিষ্টি, তেলে ভাজা খাবার, চর্বিযুক্ত মাংস, তৈলাক্ত মাছ, বাদাম, ঘি, মাখন, দুধের সর ইত্যাদি খাদ্য তালিকা থেকে বার করা প্রয়োজন। শর্করা ও চর্বি জাতীয় খাদ্য ক্যালরির প্রধান উৎস। ওজন কমাতে পরিশ্রম ও নিয়মিত ব্যায়ামের পাশাপাশি খাদ্য তালিকায় পরিবর্তন খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

এবার থেকে Spark.Live এ থাকছেন স্বনামধন্য ডায়েটিশান তথা ক্রিটিকাল কেয়ার স্পেশালিস্ট কোয়েল পাল চৌধুরী, তিনি যেমন একজন স্বনামধন্য ডায়েটিশান, ক্রিটিকাল কেয়ার স্পেশালিস্ট তেমনি কমিউনিটি নিউট্রিশনিস্ট , ডায়াবেটিস এডুকেটর এবং সঙ্গে একজন সমাজ সেবী। যিনি শুধু ওয়েইট গেইন বা ওয়েইট লসের বাইরেও পুষ্টিশিক্ষার বিস্তার নিয়ে কাজ করেন, গ্রামে গ্রামে পুষ্টিবিদ্যার প্রচার থেকে শুরু করে হসপিটালে এবং ক্রিটিকাল কেয়ার ইউনিট এ রোগীদের টিউব ফিডিং নিয়েও কাজ করে চলেছেন। তার মূল ইচ্ছে হলো সঠিক পুষ্টির মাধ্যমে সমাজকে সুস্থ ও সুন্দর করে তোলা। সম্পূর্ণ বাড়িরই তৈরী সাধারণ খাবার গুলোর মধ্যে থেকেই তিনি তৈরী করে দেন উপযুক্ত ডায়েট প্ল্যান , যার সাহায্যে বহু মানুষ উপকৃত হয়ে চলেছেন।

Spark.Live এ অনলাইন সেশনের মাধ্যমে আপনারা নিজেদের স্বাস্থ্য সম্পর্কিত যাবতীয় কৌতূহলের উত্তর পেয়ে যাবেন স্বনামধন্য ডায়েটিশান কোয়েল পাল চৌধুরীর কাছে। সেশন বুক করার জন্য নিচের লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/nutrition-tips-from-koyel-pal-chowdhury-to-make-your-diet-healthier/

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।