নিয়মিত ওম ধ্বনির সাহায্যে ধ্যান করার মধ্যে রয়েছে শারীরিক ও মানসিক উপকারিতা (Regular meditation with the help of Om has physical and mental superiority)

সুস্থ্য থাকার এক অন্যতম উপায় হল যোগ ব্যায়াম, আর নিয়মিত ওম ধ্বনির সাহায্যে ধ্যান করলে খুব সহজেই আমাদের শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য সুন্দর হয়ে উঠতে পারে, তাহলে আর দেরি না করে ওম ধ্বনির সাহায্যে ধ্যান করার অভ্যেস শুরু করে ফেলুন।

ওম ধ্বনির বিপুল ক্ষমতা

Spark.Live এর স্বনামধন্য যোগ বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে অনলাইন সেশন বুক করার জন্য লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/online-yoga-training-session-in-bangla-with-subhendu-roy

বর্তমানে আমরা সকলেই অতিরিক্ত ব্যস্ততায় দিন কাটাই, সকালে ঘুম থেকে উঠেই ব্যস্ততা শুরু হয়ে যায়, ‘ওম’ ধ্যান করার সময় কিকরে করবো তাই ভাবছেন? কিন্তু একটা কথা ভেবে দেখুনতো, আগেকার দিনে মুনি ঋষিরা এই ওম ধ্বনির ধ্যান করেই কিন্তু সাধনার পথে এগিয়ে যেতেন। ওম এই ধ্বনিটি যে শুধুমাত্র আমাদের আধ্যাত্ম্যিক বিকাশে সাহায্য করে তা কিন্তু নয়, এই ধ্যানটি আমাদের নানা শারীরিক ও মানসিক সমস্যাও দূর করতে খুবই সহায়তা করে। ‘ওম’ ধ্বনির সঠিক উচ্চারণ করলে বা কানে শুনলে আমাদের শরীরে ও মনে এক ধরনের পজিটিভ এনার্জি বা শক্তি তৈরি হয়, যা আমাদের সারাদিনের ধকল সহ্য করার ক্ষমতা প্রদান করে, একই সঙ্গে শরীরকেও চাপমুক্ত রাখতে সাহায্য করে। শুধুমাত্র ওষুধ খেয়েই সব সমস্যা দূর করা সম্ভব তা কিন্তু একেবারেই নয়, সঠিক মেডিটেশন করলে কোনোরকম সাইড এফেক্ট ছাড়াই থাকতে পারবেন একেবারে সুস্থ্য।

ওম ধ্বনির অর্থ

Spark.Live এর স্বনামধন্য যোগ বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে অনলাইন সেশন বুক করার জন্য লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/online-yoga-training-session-in-bangla-with-subhendu-roy

ও-উ-ম ঠিক এই ভাবেই উচ্চারিত হয় ওম ধ্বনি। ‘ও’ অর্থাৎ সৃষ্টি, ‘উ’ অর্থাৎ বিকাশ এবং ‘ম’ অর্থাৎ অখন্ড নীরবতা। পৃথিবীর সমস্ত শক্তির উৎস এই ওম ধ্বনি, অনেকেই এই বিষয়টি মানেন। নিয়মিত ওম ধ্বনির সাহায্যে ধ্যান করলে নানান শারীরিক ও মানসিক উপকার পাওয়া যায়।

বাড়িতেই কীভাবে ধ্যান করার জায়গা তৈরি করবেন

Spark.Live এর স্বনামধন্য যোগ বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে অনলাইন সেশন বুক করার জন্য লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/online-yoga-training-session-in-bangla-with-subhendu-roy

মেডিটেশন বা ধ্যান করলে যেমন মনঃসংযোগ বৃদ্ধি পায়, ঠিক সেরকমই মেডিটেশন করার জন্যও মন স্থির করাটা খুব প্রয়োজন। বাড়ির মধ্যে এমন একটি জায়গা নির্বাচন করুন যেখানে যথেষ্ট পরিমাণে আলো বাতাস ঢোকে এবং বাইরের শব্দ খুব বেশি আসে না। যদি এরকম জায়গা না থাকে, তাহলে সম্ভব হলে আপনার শোওয়ার ঘরের কোনও একটি জায়গা বেছে নিন যেখানে আপনি বসে মেডিটেশন করতে পারেন।

জায়গা নির্বাচন হয়ে গেলে ধ্যান করার জায়গা বা মেডিটেশন কর্নারটি বেশ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করে ফেলুন। বাড়তি যা যা জিনিসপত্র রয়েছে, যেগুলো আপনি গত বেশ কিছু বছরে সেভাবে ব্যবহার করেননি, সেগুলো ফেলে দিন। যেখানে বসে আপনি ধ্যান করবেন বলে মনস্থির করছেন, সেই জায়গাটি গুছিয়ে রাখুন এবং অন্যান্য জায়গাও গুছিয়ে রাখুন। অগোছালো ঘরে মেডিটেশন করা খুব কঠিন তাতে মন আরও চঞ্চল হয়ে ওঠে।

নিয়মিত ওম ধ্বনির সাহায্যে ধ্যান করার নানান উপকারিতা

Spark.Live এর স্বনামধন্য যোগ বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে অনলাইন সেশন বুক করার জন্য লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/online-yoga-training-session-in-bangla-with-subhendu-roy

নিয়মিত ওম ধ্বনি উচ্চারণ করলে গলায় একটি কম্পনের সৃষ্টি হয়, ফলে আমাদের শরীরে থাইরয়েডের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকে। যেহেতু আমাদের গলায় থাইরয়েড গ্রন্থি রয়েছে, কাজেই কম্পনের ফলে এই হরমোনের নিঃসরণ নিয়ন্ত্রিত থাকে। ফলে আমরা এই রোগের হাত থেকে নিজেদের সুরক্ষিত রাখতে পারি সহজেই।

সারা দিন আমাদের নানান কাজের চাপের ফলে শরীরে এবং মনে অতিরিক্ত চাপের সৃষ্টি হয়, যা খুব স্বাভাবিক। তবে এই চাপ বা ধকলের পরিমাণ বেড়ে গেলে নানা সমস্যার সৃষ্টি হতে পারে জীবনে। নিয়মিত ওম ধ্বনি উচ্চারণ করলে আমাদের স্ট্রেস বা ধকল অনেকটা কমে। শুধু তাই নয়, আমাদের শরীর ও মন দুটোই ডিটক্স হয়।

ওম ধ্বনি উচ্চারণ করার ফলে আমাদের শরীরে রক্তসঞ্চালন একদম স্বাভাবিকভাবে হয় এবং প্রতিটি স্নায়ুতে সমানভাবে রক্তের প্রবাহ বজায় থাকে। যাঁদের উচ্চ রক্তচাপ বা হাই প্রেসারের সমস্যা রয়েছে, তাঁদের অবশ্যই সারাদিনের মধ্যে অন্তত ১০ মিনিট ওম ধ্বনির সাহায্যে ধ্যান করা উচিত বলে অনেক বিশেষজ্ঞ মনে করেন।

আজকাল অনেকের মধ্যেই একটা মানসিক অস্থিরতা বা উদ্বেগ দেখা যায়। বাইরে দেখে দেখে আমরা কিছুই আন্দাজ করতে পারিনা কার মধ্যে ঠিক কি চলছে, সেই কারণে নিজেকে ভালো রাখার চেষ্টা নিজেকেই করতে হবে। তবে অস্থিরতা বা উদ্বেগের নানারকম কারণ হতে পারে। যাঁদের মধ্যে হাইপারটেনশন এবং অ্যাংজাইটি বা মানসিক অস্থিরতার সমস্যা রয়েছে, তাঁরা ওম ধ্বনি উচ্চারণ করে মন শান্ত করতে পারেন।

আপনি যদি ইনসমনিয়া বা অনিদ্রার শিকার হয়ে থাকেন তাহলে নিয়মিত শোওয়ার আগে চোখ বন্ধ করে মিনিটপাঁচেক ওম ধ্বনি উচ্চারণ করুন। এতে শ্বাস-প্রশ্বাসের প্রবাহ স্বাভাবিক হবে এবং ঘুমও আসবে। যদি আপনি বসে এই ধ্যান না করতে পারেন, কোনও অসুবিধে নেই, শুয়ে করুন। কিছুক্ষণের মধ্যেই গভীর ঘুম আপনার চোখের পাতায় নেমে আসবে।

Spark.Live এর স্বনামধন্য যোগ বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে অনলাইন সেশন বুক করার জন্য লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/online-yoga-training-session-in-bangla-with-subhendu-roy

নিজে থেকে অনেক সময় আমরা সঠিক ভাবে মেডিটেশন করে উঠতে পারিনা, কিছু ভুল নিয়মে করার থেকে ভালো হয় যদি আপনি সঠিক গাইড লাইন মেনে যোগব্যায়াম বা ধ্যান করেন। Spark.Live এ রয়েছেন স্বনামধন্য যোগ বিশেষজ্ঞেরা, যাদের সঙ্গে আপনারা অনলাইন সেশনের মাধ্যমে জীবনের যাবতীয় অস্থিরতা বা উদ্বেগ কাটিয়ে এক সুন্দর সুস্থ্য জীবনের অধিকারী হতে পারবেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।