চোখের মাধ্যমেও কি ছড়াতে পারে করোনার সংক্রমণ? (Is your eye health affected by Corona Virus?)

  • by

দিনে দিনে বাড়ছে ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। ইতিমধ্যেই সারা ভারত জুড়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা চার হাজার ছাড়িয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ১০৯ জনের। আমাদের রাজ্যে সেইটা গিয়ে ঠেকেছে প্রায় ৮০ জনের কাছাকাছি। আর তারই জেরে সারা দেশ জুড়ে চলছে লক ডাউন। তবে সারাদিন বাড়িতে বসে থাকলেও আমরা দিনের শেষে যেকোনো একবার নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস কিনতে সেই বাইরে বেরোচ্ছিই।

চোখও কি মাধ্যম হতে পারে?-

অনেক চিকিৎসকেরাই বাইরে বেড়নোর সময় মাস্ক পড়ে বেড়নোর পরামর্শ দিচ্ছেন। আর বারবারই করোনা ভাইরাস নিয়ে গবেষণা মূলক আলোচনায়, মুখ এবং নাকের সুরক্ষার কথা উঠে এসেছে।একটি মাত্র রাইবোনিউক্লেয়িক অ্যাসিড (আরএনএ) যুক্ত এই ভাইরাস শুধুমাত্র মিউকাস মেমব্রেনের মাধ্যমে মানবদেহে ঢুকতে পারে। কিন্তু চোখের সুরক্ষা নিয়ে সে ভাবে কথা বলা হয়নি কখনও। অথচ চোখ, নাক এবং মুখ— এই তিন জায়গাতেই রয়েছে মিউকাস মেমব্রেন। সুতরাং শুধু মুখ ও নাক নয়, সুরক্ষা কবচ থাকতে হবে চোখেও, এমনটাই জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞেরা।

বিষেশজ্ঞরা কি বলছেন-

এই সতর্কবার্তাকে সমর্থন করছেন দেশ বিদেশের বিভিন্ন চক্ষু বিশেষজ্ঞেরা। মুখ, নাক নিয়ে আলচনা হলেও চোখের মাধ্যমে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের আশঙ্কা নিয়ে বিশেষ আলোচনা হয়নি। কিন্তু বিষয়টি মাথায় রাখা জরুরি। বিশেষ করে যারা সংক্রমণজনিত রোগের চিকিৎসায় যুক্ত এবং যারা রাস্তায় বেরোতে বাধ্য হচ্ছেন, তাদের এটা মনে রাখা অতন্ত্য প্রয়োজন। চক্ষু বিশেষজ্ঞের মতে, ডাক্তার এবং নার্সরা চোখের সুরক্ষায় বিশেষ ধরনের চশমা ও রাস্তায় বেরোনোর আগে সকলেই চোখের দু’পাশ ঢাকা সানগ্লাস পড়া অতন্ত্য জরুরী। অন্তত যে কোনও চশমা বা সানগ্লাস পরলেও হবে। তাতে চোখে হাত দেওয়ার প্রবণতা ঠেকানো যাবে।

আবার অনেকে এ কথাও বলেছেন, চোখের বিশেষ চারিত্রিক গঠনের জন্য হয়তো সংক্রমিত ব্যক্তির থেকে ড্রপলেট সরাসরি চোখে ঢুকবে না। কারণ, বাইরের কিছু ঢোকার মুহূর্তে চোখ অক্ষিপল্লব বন্ধ করে দেয়। তবে হাতে ভাইরাস লেগে থাকলে চোখ ঘষার মাধ্যমে তা শরীরে ঢুকতে পারে। ফলে এই করোনা ভাইরাসকে রুখতে হলে, সবার আগে আমাদের বাইরে বেরনোর সময়, মাস্কের পাশাপাশি সানগ্লাস অথবা চশমা পড়ে বেরনো দরকার। যাতে চোখের মাধ্যমে ভাইরাস কখনই আপনার শরীরে ঢুকতে না পারে। আর যারা করোনা চিকিৎসা করছেন সেই সমস্ত চিকিৎসকদেরও এই পরামর্শ মেনে চলতে হবে। তবেই আমরা এই সংক্রমন থেকে বাঁচতে পারবো।

তো বুঝতে পারছেন নিশ্চয়ই, হাত পরিষ্কার রাখার পাশাপাশি কতটা জরুরি আমাদের চোখের যত্নের. কারণ চোখের থেকে অমূল্য বুঝি আর কিছুই নেই. তাই নিজের যত্ন নিজে নিন.

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।