ক্যান্সার মুক্ত জীবন পেতে বাদ দিতে হবে কোন অভ্যেসগুলি? (How to get a cancer free life?)

  • by

এখন কিন্তু যাই হোক আমরা নিজেদের শরীর নিয়ে বেশ খানিকটা সচেতন হতে শিখেছি. কিন্তু যে মানুষটি সকাল থেকে রাত অবধি একেবারে, নিয়ম মেনে খাওয়া দাও করছেন, বা করেন, তাদের শরীরে কি কোনো রোগ নেই? বা এইরকম বহুবার দেখা গেছে, যে মানুষটির সারা জীবন কোনো নেশা নেই, তারও শরীরে দেখা দিয়েছে, ক্যান্সারের মতো মরণ রোগের. তখনই মনে প্রশ্ন ওঠে কেন বা কিভাবে? তাহলে ক্যান্সারের আসল কারণটি কি?
আসলে আমরা প্রতিনিয়ত যে ভাবে ভেজাল খাবার খেয়ে চলেছি, তাতে আমাদের শরীরের ইমিউনি সিস্টেম বহুলভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়. আর তাতেই আমাদের শরীরের অনায়াসে বাসা বাঁধে নানা জটিল রোগের.
এইবার ভেজাল খাওয়া ছাড়াও, যে অভ্যেসগুলির কিছুটা পরিবর্তনে, আমরা নিজেদের করে তুলতে পারবো, ক্যান্সার মুক্ত, সেগুলির ওপর আলোকপাত করা যাক –

কোন কোন অভ্যাস ত্যাগ করতে হবে ?

১. ধূমপান- সেটা নরমাল সিগারেট হোক বা ই- সিগারেট, ক্ষতি কিন্তু দুটোতেই একই. সাধারণ বিড়ি-সিগারেট ও ই-সিগারেট— সব ক্ষেত্রেই শরীরে ঢুকে পড়ে তামাক ও কার্বন। ক্যানসার দানা বাঁধার সব রকম উপাদান এতে মজুত।
‘ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অব মলিকিউলার সায়েন্স’-এ প্রকাশিত গবেষণাপত্র অনুযায়ী, এই ই-স্মোকিংয়ের অভ্যাসের কারণে মুখগহ্বরের টিস্যুতে নানা রকম পরিবর্তন দেখা যায়। যে পরিবর্তনগুলো স্বাভাবিক ভাবেই ক্যানসার ডেকে আনে।

২. বাজারে প্রচুর প্যাকেটজাত খাবার পাওয়া যায়, মাংস থেকে শুরু করে সস, বেকন, সালামি সবই পাওয়া যায়, আর রান্নার ঝক্কি কমাতে সাধারণ মানুষ কেনেনও. কিন্তু বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও চিকিৎসকদের মত মানলে দেখা যায়, এগুলোকে গ্রুপ ওয়ান কার্সিনোজেন ও গ্রুপ টু-এ কার্সিনোজেন হিসেবে চিহ্নিত করেছে। অত্যধিক পরিমাণে এ সব খেলে ক্যানসারের বীজ শরীরে ঢোকে।

৩. গরম মানে ফুটন্ত গরম পানীয় আমাদের শরীরে ক্যান্সারের প্রবণতা বাড়িয়ে দেয়. বিজ্ঞানীদের দাবি, খাদ্যনালীতে ক্যানসার হওয়ার সম্ভাবনা বহু গুণ বাড়িয়ে দিচ্ছে ফুটন্ত চা কফি বা দুধ খাওয়ার প্রবণতা। এমনকি গ্ল্যান্ডেও সমস্যা করে, এই ফুটন্ত পানীয়.

৪. অনেক সময় ডেয়ারি প্রোডাক্ট মানে, প্যাকেটজাত দুধ, ছানা, মিষ্টি ক্যান্সারের মাত্রা বাড়ায়. যদি কারো আগের থেকেই কোন ইনফেকশন থেকে থাকে, শরীরে, তাহলে তা অনেকটাই বাড়িয়ে দেয়, ডেয়ারি প্রোডাক্ট.

Dairy Products; milk,cheese,ricotta, yogurt and butter

৫. জানেন, চুলের রং বা হেয়ার ডাই ক্যান্সারের প্রবণতা বাড়ায়. ডাইয়ে থাকে অ্যামোনিয়া-সহ নানা ক্ষতিকর রাসায়নিক— যা চুলের ত্বকের মাধ্যমে শরীরে প্রবেশ করে. এই ডাই থেকে স্তন ক্যানসার ও ত্বকের ক্যানসারের ভয় থাকে বলে জানিয়েছে ‘ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অব ক্যানসার’-এ প্রকাশিত আমেরিকান বিজ্ঞানীদের গবেষণা।

৬. সর্বশেষ তবে একেবারে গুরুত্ব না দিলেই নয়, যেটি , সেটি হলো স্ট্রেস-হ্যা অতিরিক্ত চিন্তা কিন্তু আপনার শরীরে জন্ম দিতে পারে এই মরণ রোগের.

তাই এখন থেকেই এই সবকিছু ত্যাগ করুন, নিজেকে বাঁচিয়ে রাখতে, ক্যান্সার মুক্ত জীবন পেতে.

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।