পৌষপার্বণ মানেই পিঠেপুলির বাহার ! (How many types of pithe puli are made in Bengal on the purpose of Poush Parban?)

  • by

পৌষ পার্বণ মানেই, বাঙালির আরেকটি উল্লেখযোগ্য পার্বণ. আর এই পার্বনটি একটু বেশি গুরুত্বপূর্ণ কেন জানেন, কারণ এই পার্বনটিকে ঘিরে, খাদ্যরসিক বাঙালিদের পেটপূজোর বা বলা চলে মিষ্টিমুখ করার একটা দুর্দান্ত সুযোগ থাকে. কারণ কম বেশি বাঙালি ঘরে এই দিনটিতে কিছু না কিছু মিষ্টি খাবার যেমন পায়েস বা পিঠে তৈরী হয়. তবে বেশি উত্তেজনা কিন্তু থাকে নানান রকমের পিঠে দিয়ে. ভাবুন তো এই একটা পার্বনেই কতরকমের পিঠে আমরা দেখতে পাই. আর সবটাই এক সে বড় কর এক.

শুভ মকর সংক্রান্তি, আজকের দিনটা সকলের কাছেই খুব স্পেশাল এই দিনের যেমন নানারকম নিয়ম কানুন থাকে তারইমধ্যে সব থেকে মজাদার হলো জমিয়ে পিঠেপুলি খাওয়া । শীতকাল মানেইতো হরেকরকম মিষ্টির সম্ভার , আর এই দিনটাই বিশেষ করে আমরা বাঙালিরা সকলেই পৌষপার্বন উজ্জাপন করি হরেকরকম পিঠে পুলি পায়েস বানিয়ে। এমন কেউ নেই যার এগুলো ভালোলাগেনা, দুধ গুড় এর মিশ্রনে তৈরী হয় নানান লোভনীয় পদ। যা খেয়ে হয়তো আমাদের মেদবৃদ্ধি হয় কিছুটা ঠিকই তবে আজকের দিনে এগুলো না খেলে সারা বছর মনে আফসোস রয়ে যায় ,

চলুন দেখেনি কি কি পিঠে পুলি বানাতে পারি আজকের দিনে-

দুধ পুলি –

পিঠের মধ্যে এটি বলতে গেলে সবার প্রথমেই আসে, হাতে গড়া চালের পিঠেকে দুধে এর মধ্যে দিয়েই তৈরী হয় এটা.

পাটিসাপটা –

খিরের পাটিসাপ্টা অনেকে পছন্দ করেন অনেকে আবার নারকেল গুড় দিয়ে পুর তৈরী করে পাটিসাপ্টা বানান দুটোই অপূর্ব সুস্বাদু হয় খেতে।

নলেন গুড়ের পায়েস-

পায়েস আমরা সকলেই ভালোবাসি আর এইদিনে নলের গুড় দিয়ে তৈরী পায়েস খাবার মজাটাই আলাদা।

মুগ ডালের পিঠে –

যারা খুব বেশি মিষ্টি পছন্দ করেননা তারা এই মুগ ডালের পিঠে বানিয়ে ফেলতে পারেন ভাজা পিঠে হালকা মিষ্টির খেতেও দারুন ক্রিস্পি হয়.

মালপোয়া –

এটি খুব সহজে ঘরে ঘরে বানানো এক পিঠে, অনেকে শুধু ভাজা করেন আবার অনেকে পিঠে টা ভেজে চিনির রসে ডুবিয়ে খান.

এই তো রইলো কয়েকটি পিঠের কথা, আরো নানারকম পিঠে বানিয়ে আজকের দিনটা উপভোগ করুন নিজেও খান আর সকলকে খাওয়ান। আপনার বাড়িতে কত রকমের পিঠে তৈরী হয়? আর সেগুলির নামই বা কি? জানার অপেক্ষায় রইলাম. কমেন্টে জানাতে ভুলবেন না.

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।