ঠাকুর ঘরে কোন কাজ করলে নেমে আসবে অমঙ্গল জানেন কি ? ( Do Not Do These Things In Worship Room)

  • by

আমাদের সকলের কাছেই বাড়ির মধ্যে ঠাকু ঘর এক গুরুত্বপূর্ণ জায়গা , কারণ তার মধ্যে বসবাস করে আমাদের ইষ্ট দেবতা। তাদের আশীর্বাদেই আমরা সুখ শান্তিতে জীবন কাটাই, তবে অবশ্যই সঠিক নিয়ম অনুসারে পুজো করতে হবে, তবে যদি তা না করা হয় তাহলে জীবনে শান্তির পরিবর্তে নেমে আস্তে পারে অশান্তির কালো ছায়া , না জেনে না বুঝে অনেকসময় আমরা ঠাকুরঘরে এমন কিছু ভুল কাজ করে ফেলি যা আমাদের জীবনে অমঙ্গল ডেকে আনে।দেখে নেওয়া যাক কোন কাজগুলো ঠাকুরঘরে করা যাবেনা –

প্রথমেই ঠাকুরঘরের সাজসজ্জা দেখতে হবে, জেনে নিতে হবে ঠিক কোন ধরণের জিনিস ব্যবহার করা উচিত ঠাকুর ঘর সাজানোর জন্য-

সিংহাসন-

ঠাকুরকে কখনো সিংহাসন ছাড়া রাখতে নেই , সব থেকে ভালো কাঠের সিংহাসন , তবে মার্বেল বা অন্য কোনো ধাতুর সংহাসনএও রাখা যায় দেবতাকে।

প্রসাদ-

ঠাকুরকে অর্পণ করার জন্য যে প্রসাদ দি তা অনেক দিন ধরে কিনে এনে রাখা যাবেনা, ঠাকুরকে অর্পণ করার জন্য আনা প্রসাদ ঠাকুরঘরের বাইরে রাখতে হবে, যেটুকু প্রয়োজন সেটুকু ঠাকুরকে সাজিয়ে দিতে হবে।দেবতার উদ্দেশ্যে আতপ চাল ছাড়া অন্য কোনো চাল ব্যবহার করা যাবেনা একেবারেই।

কি কি রাখা যাবেনা-

১।ঠাকুরঘরে পুরোনো ক্যালেন্ডার রাখা যাবেনা।
২।একই সিংহাসনএ একইরকম দুটো ঠাকুর বা দুটো শঙ্খ রাখা যাবেনা।
৩।যদি প্রদীপ জ্বালানো হয় তাহলে বিশেষভাবে খেয়াল রাখতে হবে যাতে পুজোর শুরু থেকে শেষ অবধি প্রদীপটি জলে।
৪। ঠাকুর ঘরের প্রদীপ জ্বালালে তা কখনোই মাটিতে রাখবেন না ।তার জন্য প্রদীপ দানি ব্যবহার করবেন। প্রদীপের নীচে আতপ চাল রাখুন আপনার পুজো সফল হবে।
৫। শিবলিঙ্গ ,শালগ্রাম শিলা , কপূর ,শঙ্খ কখনোই মাটিতে রাখবেন না।
৬। ঠাকুর ঘরে কোন ভাঙ্গা মূর্তি রেখে পুজো করবেন না ।এতে অমঙ্গল হয় ।ভাঙ্গা মূর্তি থাকলে তা জলে ভাসিয়ে দিন।
৭। ঠাকুর ঘরে কোনদিন দুটো শিবলিঙ্গ রাখবেন না। এর ফলে সংসারের ঝামেলা বিপত্তি বাড়বে।

অবস্থান-

পুজো করার সময় কখনো একেবারে ঠাকুরের মুখোমুখি বসতে নেই, একটু ডানদিকে বা বাঁদিকে চেপে বসে পুজো করতে হয়।

দেব- দেবী-

বাড়িতে লক্ষ্মী ঠাকুর থাকলে একটি লাল কাপড়ের উপরে লক্ষ্মী ঠাকুরের মূর্তি রাখুন ।এতে আপনার ধন সম্পদ ও ঐশ্বর্যের পরিমাণ বৃদ্ধি পাবে।

ধর্মবিশ্বাসী মানুষের কাছে ঈশ্বরী হলে প্রথম এবং প্রধান শক্তি। তাই সবাই আমরা ভগবানের সন্তুষ্টি ও কৃপা লাভের জন্য ঈশ্বর আরাধনায় রত থাকি ।এইসকল কিছু বিশেষ নিয়ম মেনে পুজো করলে সংসার সুখ সমৃদ্ধিতে ভোরে উঠবে ঠিকই কিন্তু সর্বোপরি প্রয়োজন মনের আসল ভক্তি ও পবিত্র শ্রদ্ধা।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।