ডায়েটিশিয়ান সুদীপ্তা কুন্ডু মুখার্জী দিয়েছেন ডায়েট সম্পর্কিত কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের উত্তর (Dietitian Sudipta Kundu Mukherjee answers some important questions about diet)

ডায়েট নিয়ে নানারকম প্রশ্ন থাকে আমাদের মনে, কিন্তু সেগুলোর সঠিক উত্তর সময় মতো আমরা পাইনা। আপনাদের সকলের জন্য ডায়েটিশিয়ান সুদীপ্তা কুন্ডু মুখার্জীর তরফ থেকে রইলো ডায়েটের কিছু প্রয়োজনীয় প্রশ্নের উত্তর।

১) করোনা ভাইরাস মোকাবিলার জন্য কিছু নির্দিষ্ট ডায়েট হয় কি?

উত্তর- কোভিড19 বা কোরোনাভাইরাস একটা গ্লোবাল প্যান্ডেমিক। এই করোনা ভাইরাস মোকাবিলার ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট কোনো ডায়েট হয়না কিন্তু এইক্ষেত্রে আমাদের উচিত ইমিউনিটি বা শরীরের রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা বাড়ানো, এই রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা বাড়লে আমাদের এই ভাইরাসে আক্রান্ত হবার সম্ভবনা কমবে বা আক্রান্ত হলেও আমরা এটার সঙ্গে ফাইট করে নিজেদেরকে তাড়াতাড়ি সুস্থ্য করে তুলতে পারবো।

Spark.Live এ ডায়েটিশিয়ান সুদীপ্তা কুন্ডু মুখার্জীর সঙ্গে অনলাইন কন্সালটেশনের জন্যে লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/diet-and-nutrition-consultation-for-weight-loss-with-sudipta-kundu-mukherjee-bangla

তাই এই ক্ষেত্রে আমাদের নিয়মিত খাদ্যতালিয়ার নির্দিষ্ট কিছু খাদ্যদ্রব্য অন্তর্ভুক্ত করতে হবে-

  • গিলয় – রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে এবং ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়ার সঙ্গে ফাইট করে,
  • হলুদ- এটি খুব ভালো ইমিউনিটি বুস্টার ও রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা বাড়ায়,
  • বেশি পরিমানে প্রোটিন জাতীয় খাবার গ্রহণ করা উচিত,
  • দুধ ও দুধজাতীয় খাবার, ডিম এগুলো নিয়মিত খেতে হবে,
  • আমলা – ভিটামিন সি সমৃদ্ধ তাই এটি শরীরের রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা বাড়ায়,
  • উইট গ্রাস – রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা বাড়িয়ে ভাইরাস ব্যাকটেরিয়া থেকে দূরে রাখে,
  • প্রতিদিনের খাবারের তালিয়ায় পাতি লেবু, মুসাম্বি লেবু এই জাতীয় ফল যুক্ত করুন,
  • সবুজ শাক সবজি মূলত- যেকোনো ধরণের শাক, ব্রোকোলি এগুলি খাওয়া উচিত,
  • আলমন্ড, আখরোট(vitamin e) এগুলি নিয়মিত খাওয়া উচিত।

২) ওজন কমাতে চাইলে চা/কফি খাওয়া কি ক্ষতিকর?

Spark.Live এ ডায়েটিশিয়ান সুদীপ্তা কুন্ডু মুখার্জীর সঙ্গে অনলাইন কন্সালটেশনের জন্যে লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/diet-and-nutrition-consultation-for-weight-loss-with-sudipta-kundu-mukherjee-bangla

উত্তর- ওয়েট ম্যানেজমেন্টের ক্ষেত্রে কফির একটা মিশ্র প্রতিক্রিয়া আছে, কফি ওজন কমাতে সাহায্য করে মেটাবলিজম বাড়িয়ে কিন্তু কফির মধ্যে ক্যাফেনের পরিমান অনেক বেশি থাকে ফলে ঘুম কম হয় যার ফলে আমাদের ওজনের উপর একটা নেগেটিভ প্রভাব পড়ে।

চা এর মধ্যে অবশ্যই আমি পরামর্শ দেবো গ্রিন টি খেতে, গ্রিন টির মধ্যে প্রচুর পরিমানে এন্টিঅক্সিডেন্টস থাকে যা শরীরের অতিরিক্ত ফ্যাট বার্ন করতে ও মেটাবলিজম বাড়াতে সাহায্য করে। সেই কারণে ওজন কমানোর ক্ষেত্রে গ্রিন টির খুবই কার্যকরী ভূমিকা রয়েছে।

৩) কিটো ডায়েট কতখানি উপকারী ভূমিকা নিতে পারে ওজন কমানোয়?

Spark.Live এ ডায়েটিশিয়ান সুদীপ্তা কুন্ডু মুখার্জীর সঙ্গে অনলাইন কন্সালটেশনের জন্যে লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/diet-and-nutrition-consultation-for-weight-loss-with-sudipta-kundu-mukherjee-bangla

উত্তর- কিটো ডায়েট হল এমন একটি ডায়েট যাতে কার্বোহাইড্রেট একদম কম পরিমানে থাকে(total calorie r 5%), মাঝারি পরিমানে প্রোটিন থাকে (total calorie r 20%), ফ্যাট তাকে সর্বাধিক পরিমানে(total calorie r 75%), আমাদের শরীরে এনার্জির আসল সোর্স হল গ্লুকোজ যা কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার থেকে পাওয়া যায়। আমরা যখন কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার কম খাই তখন এনাৰ্জি সোর্স হিসেবে শরীরের স্টোর থাকা কার্বোহাইড্রেট ব্যবহার হয়। কিন্তু ৩-৪ দিন পর যখুন গ্লুকোজের পরিমান কমে যায় এবং সেইসঙ্গে রক্তে ইনসুলিনের পরিমানে কমে যায় তখন লিভারে কিটোন বডি তৈরী হয় এবং এনার্জি সসোর্স হিসেবে এই কিটোন যদি ব্যবহার হয় যা শরীরে সঞ্চিত ফাটা থেকে তৈরী হয়। ফলে ওজন কমতে থাকে।

কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে কিটো ডায়েট করাটা উচিত নয়, কিডনিতে স্টোন হবার সম্ভবনা বাড়ায়, রক্তে ইউরিক এসিডের পরিমাণ বৃদ্ধি করে, কেউ যদি মনে করেন কিটো ডায়েট করবেন সেক্ষেত্রে ডায়েটিশিয়ানের সঙ্গে পরামর্শ করে নেওয়া একান্ত জরুরি। অনেকদিন ধরে যাদের ওজন কিছুতেই কমছেনা সব রকম ডায়েট চার্ট ফলো করার পরেও, কিটো ডায়েট তাদের ক্ষেত্রে একটা অন্যতম উপকৃত ডায়েট হতে পারে।

৪) শিশুদের এই সময় কি ধরণের ডায়েটে রাখা উচিত?

Spark.Live এ ডায়েটিশিয়ান সুদীপ্তা কুন্ডু মুখার্জীর সঙ্গে অনলাইন কন্সালটেশনের জন্যে লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/diet-and-nutrition-consultation-for-weight-loss-with-sudipta-kundu-mukherjee-bangla

উত্তর- রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াবে এই ধরণের খাবার শিশুদের দেওয়া উচিত, যে সকল বাচ্চাদের ইমিউনিটি কম তাদের খুব সহজেই ঠান্ডা লেগে যাওয়া বা কাশি ইত্যাদি সমস্যা দেখা যায়। ফলে তাদের যেকোনো ইনফেকশন হওয়ার সম্ভবনাও অনেক বেশি। শিশুদের গিলয় জল দিন, যা ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়ার সাথে লড়াই করতে সাহায্য করে, গিলয় ট্যাবলেটও পাওয়া যায়। শিশুদের সম্পূর্ণ খালি পেটে স্কুলে পাঠানো একদমই উচিত নয়, শিশুদের ক্ষেত্রে বিশেষ করে দুধ ও হলুদ মিশিয়ে খেলে খুবই উপকার হবে। শিশুদের প্রতিদিন খাদ্য তালিকায় ডিম এবং লেবু জাতীয় ফল রাখা আবশ্যক।

৫) ভিটামিন সি সাপ্লিমেন্টস বলতে ঠিক কি কি বোঝায়?

উত্তর- ভিটামিন সি বা অ্যাসকরবিক অ্যাসিড বিভিন্ন খাবারে পাওয়া যায় যেমন- আমলা, মুসাম্বি লেবু, পাতি লেবু এগুলো ছাড়াও পেয়ারা, টমেটো ইত্যাদিতে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন সি পাওয়া যায়। ভিটামিন সি আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে, আই ভিটামিন সি খাদ্যদ্রব্যের মধ্যে ছাড়াও বিভিন্ন রকমের ওষুধের মধ্যেও পাওয়া যেতে পারে।

সার্টিফায়েড ডায়েটিশিয়ান সুদীপ্তা কুন্ডু মুখার্জী

দীর্ঘ ৯ বছরের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন সার্টিফায়েড পুষ্টিবিদ সুদীপ্তা কুন্ডু মুখার্জী, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি গ্রাডুয়েশন করেন এবং পরবর্তী কালে মাস্টার ডিগ্রিও কমপ্লিট করেন। খাদ্য ও পুষ্টি বিষয়ে তিনি IDF থেকে ডায়াবেটিসের উপর সার্টিফাই করেছেন। দীর্ঘদিন ধরে তিনি ফিটনেস ইন্ডাস্ট্রিতে কর্মরত রয়েছেন। সঠিক নিউট্রিশনের মাধ্যমে মানুষকে সুস্থতার পথে এগিয়ে নিয়ে যাওয়াই তার অন্যতম মূল লক্ষ্য। তিনি বিভিন্ন অসুখের জন্য আলাদা আলাদা রকমের ডায়েট চার্ট তৈরী করে দেন এবং শিশু থেকে প্রৌঢ় সকলেই তার কাছে ডায়েটের পরামর্শ নিয়ে উপকৃত হয়ে চলেছেন। বর্তমানে তিনি Spark.Live এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন একজন বিশিষ্ট ডায়েটিশিয়ান হিসেবে। আপনারা সকলেই নিজেদের যাবতীয় ডায়েট সম্পর্কিত সমস্যার সমাধান করে ফেলতে পারবেন পুষ্টিবিদ সুদীপ্তার সঙ্গে অনলাইন কন্সালটেশনের মাধ্যমে।

Spark.Live এ ডায়েটিশিয়ান সুদীপ্তা কুন্ডু মুখার্জীর সঙ্গে অনলাইন কন্সালটেশনের জন্যে লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/diet-and-nutrition-consultation-for-weight-loss-with-sudipta-kundu-mukherjee-bangla

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।