ডায়েটের নানান গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন ডায়েটিশিয়ান সোহিনী চক্রবর্তী চ্যাটার্জী(Dietitian Sohini Chakraborty Chatterjee has answered many important questions about diet)

  • by

বাঙালির প্রিয় উৎসব দূর্গা পুজো, আর এই বছরের পুজো প্রায় চলেই এলো। আমরা অনেকেই পুজোর আগে নিজেদের অতিরিক্ত ওজন কমিয়ে আরও একটু সুস্থ্য সুন্দর হয়ে উঠতে চাই, কিন্তু তার জন্য প্রয়োজন হয় সঠিক গাইডলাইনের। Spark.Live এর বিশিষ্ট ডায়েটিশিয়ান সোহিনী দিয়েছেন ডায়েটের বিশেষ কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের সহজ উত্তর। তাহলে আর দেরি না করে আসুন নিজেদের ডায়েট সম্পর্কিত ধারণা একটু স্পষ্ট কর নেওয়া যাক।

1) ডায়েট করা মানে কি পছন্দের খাবার থেকে সম্পূর্ণ দূরে থাকা?

আজই লগ-ইন করুন-https://spark.live/consult/category/all/?lang=ba

উত্তর- ডায়েট করা মানে কখনোই পছন্দের খাবার থেকে সম্পূর্ণ দূরে থাকা নয়। তবে এই বিষয়টা সম্পূর্ণ নির্ভর করে শারীরিক পরিস্থিতি ও খাবারটির ধরণের ওপরে। একটা উদাহরণ দিয়ে বিষয়টি বোঝানো যাক- একজন ডায়াবেটিস রোগীর যদি ব্লাড সুগারের মাত্রা অত্যন্ত বেশি হয় এবং তার পছন্দের তালিকায় যদি মিষ্টি জাতীয় খাবার থেকে থাকে, তাহলে নিশ্চয়ই তাকে কিছুদিনের জন্য মিষ্টি জাতীয় পছন্দের কিছু খাবার যেমন দোকানের মিষ্টি(রসগোল্লা, সন্দেশ), কেক, পেস্ট্রি, কোল্ডড্রিংক্স থেকে দূরে থাকতেই হবে| তা নাহলে তার শরীরের মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে|
তবে কিছু কিছু মিষ্টি স্বাদ থেকে তিনি বঞ্চিত হবেন না অবশ্যই, যেমন- আপেল, কমলালেবু এইসব ফলের মিষ্টি স্বাদ তিনি নিশ্চয়ই গ্রহণ করতে পারবেন| আর তার ব্লাড সুগারের লেভেল স্বাভাবিক মাত্রায় ফিরে এলে তার শারীরিক অবস্থা অনুযায়ী একজন অভিজ্ঞ ডায়েটিশিয়ান তাকে অল্প স্বল্প মাত্রায় ক্ষতিকর নয় এমন কিছু মিষ্টি খেতে অনুমতি দেবেন|

২) শুধুমাত্র ডায়েট করে কি ওজন কমানো সম্ভব?

উত্তর- শুধু ডায়েট করে ওজন কমানো যায় কিনা সেক্ষেত্রে কয়েকটি কথা জানা দরকার| কোনো মানুষের ওজন অবশ্যই তার উচ্চতা অনুযায়ী আদর্শ হতে হবে, কোনো মানুষের ওজন যদি তার আদর্শ ওজনের চেয়ে অনেকটাই বেশি হয় সেক্ষেত্রে অবশ্যই ওজন কমানোর কথা ভাবতেই হবে| তবে এক্ষেত্রে আমরা সবসময়েই ৭০%ডায়েট আর ৩০% এক্সারসাইজের কথা বলি, তার কারণ হল ওজন কমানোর সময় কোনো পেশেন্টকে আমরা সাধারণত খাবারের পরিমান কম করতে বলি এবং সেই খাবার যাতে সম্পূর্ণভাবে শরীরে digestion, absorption,metabolism হয় তাই উপযুক্ত এক্সারসাইজ করতে বলি|

এর ফলে শরীরে কোনো বাড়তি ক্যালোরি মেদ হিসাবে জমা হয়না এবং শরীরের সমস্ত কোষগুলো ঠিকমতো পুষ্টি উপাদান পেয়ে সচল থাকে| উপরন্তু শরীরে জমা মেদ ভেঙে শরীরকে ক্যালোরি যোগান দেয়, তাই ওজন কমানোর ক্ষেত্রে এবং সার্বিক ভাবে শরীর সুস্থ রাখার জন্য দিনে অন্তত ৩০ মিনিট এক্সারসাইজ করার পরামর্শ দেওয়া হয়| তবে যদি কোনো ওবিস পেশেন্ট কোনো কারণে শারীরিকভাবে এক্সারসাইজ করতে না পারেন বা অসুস্থ থাকেন সেক্ষেত্রে তাকে শরীরের মেটাবলিজম বাড়ায় এমন লো ক্যালোরি খাবার দিয়ে ওজন কমানোর চেষ্টা করা হয়|

আরও পড়ুন-Spark.Live-এর বিশিষ্ট নিউট্রিশনিস্ট পিয়ালী পড়ুয়া(বিশ্বাস) দিয়েছেন ডায়েটের কিছু জরুরি প্রশ্নের উত্তর(Spark.Live’s prominent nutritionist Piyali Parua(Biswas) has answers to important dietary questions)

৩) বর্তমানে Apple cider vinegar খুব প্রচলিত এটার উপকারিত কি?

উত্তর- Apple cider vinegar প্রকৃতপক্ষে হল apple জুস যা ferment করে অ্যালকোহল ও আসিডে পরিণত করা হয়| বর্তমানে দেখা গেছে যে বিভিন্ন শারীরিক সমস্যায় এই আপেল সিডার ভিনেগার খুবই ভালো কাজ করে| আসুন আমরা দেখে নি সেসব ক্ষেত্রগুলো-

  • বিভিন্ন সমীক্ষায় দেখা গেছে যে খাদ্য গ্রহণের আধ ঘন্টা আগে আপেল সিডার ভিনেগার জলে মিশিয়ে পান করলে এটি খাদ্য হজম করায় ফলে, ইনডাইজেশন বা আসিডিটির সম্ভাবনা থাকে না|
  • এটি শরীরের মেটাবলিজম বাড়ায়, ফলে ওজন নিয়ন্ত্রণ করায় সাহায্য করে।
  • এটি কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে|
  • আপেল সিডার ভিনেগার জলের সাথে মিশিয়ে রাত্রে ডিনারের পর ঘুমোতে যাওয়ার সময় পান করলে তা fasting blood sugar কমাতে খুব কার্যকরী|
  • এছাড়াও রক্তের কলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ করতে আপেল সিডার ভিনেগারের সঙ্গে উষ্ণ গরম জল, মধু, লেবুর রসের মিশ্রণ খুব উপকারী|
  • তবে এত ভালো দিকের মধ্যেও দুটি কথা বলতে হবে, তা হোল, আপেল সিডার ভিনেগার কেনার সময় তাতে mothers culture বা mothers recipe কথাটি লেখা থাকতে হবে এবং অতিরিক্ত মাত্রায় আপেল সিডার ভিনেগার গ্রহণ স্বাস্থ্যর পক্ষে ক্ষতিকর|

৪) গরম খাবার কি ধরণের বাসনে রাখা উপযুক্ত?

উত্তর- গরম খাবার কোন ধরণের পাত্রে রাখা উচিৎ সেটি সত্যিই খুব গুরুত্ব পূর্ণ বিষয়, কারণ এই ছোট ছোট বিষয় গুলো থেকেই ভবিষতে বড়ো ক্ষতি হতে পারে| প্রথমেই বলবো প্লাস্টিক জাতীয় পাত্রে কোনো ভাবেই গরম জিনিস রাখা যাবে না, কারণ গরম খাবার প্লাস্টিকের সাথে বিক্রিয়া ঘটায়, উপরন্তু গরম খাবার রাখলে প্লাস্টিকে উপস্থিত BPA bisphenol A খাবার এ মিশে যায়, যা খুবই শরীরের পক্ষে ক্ষতিকর| তাই আমাদের যেসব পাত্রে গরম খাবার রাখতে হবে তা হলো স্টেইনলেস স্টিল, কাঁচের পাত্র, সিরামিকের বাসন ইত্যাদি,যা খাদ্য উপাদানের সাথে কোনো বিক্রিয়া ঘটায় না এবং শরীরের কোনো ক্ষতি করে না|

আরও পড়ুন-লকডাউনে বাড়িতে থেকে ওজন বেড়ে যাচ্ছে? জেনে নিন ডায়েট করে কিভাবে ওজন নিয়ন্ত্রণ করবেন(Is lockdown resulting your weightgain? Learn how to control weight by dieting)

৫) ডায়েট নিয়ে কিছু সচেতনতার বার্তা যদি দেন?

উত্তর- ডায়েট নিয়ে সচেতন হওয়া প্রত্যেকটা মানুষের ক্ষেত্রে অপরিহার্য| তবে এই পরিস্থিতিতে যে বিশেষ কথাগুলো বলবো তা হল- এখনকার পরিস্থিতিতে মানুষের বাড়ির বাইরে যাওয়া অনেক কমেছে, ফলে শারীরিক কাজকর্ম কমেছে, আবার বাড়িতে থাকার ফলে খাওয়ার মাত্রাও বেড়েছে, ফলে বাড়তি ওজন পিছু নিয়েছে অনেকের| কিন্তু তার ফলে নানারকম প্রচলিত ভুলভাল ডায়েট রেজিম ফলো করে বা অন্য কারোর দেখে সেই অনুযায়ী ডায়েট করে অসুবিধায় পড়ছে মানুষ| এতে ওজন স্বাস্থ্যকর ভাবে তো কমছে না, বরং আরও বেশি শারীরিক দীর্ঘমেয়াদ জটিলতা দেখা দিচ্ছে শরীরে| এমন ঘটনা রোজ ঘটছে চোখের সামনে, তাই একজন ডায়েটিশিয়ান হিসেবে বলবো প্রতিটি মানুষের শরীরের চাহিদা আলাদা, আলাদা মেটাবলিজম ও সবকিছুই|

তাই অভিজ্ঞ ডায়েটিশিয়ানের কাছ থেকে প্রয়োজনে কন্সালটেশন নিন, আর রোজকার জীবনে natural food যেমন ফল, শাকসবজি, ডাল, মাছ-মাংস-ডিম, রুটি-ভাত এসবই খান পরিমান মতো, রোজ নিয়মিত অন্তত ৩০ মিনিট এক্সারসাইজ করুন, ২-৩ লিটার জলপান করুন আর মনকে স্ট্রেসমুক্ত রাখুন| আর ইমিউনিটি বুস্ট আপ করতে এইসব জিনিস গুলো মাথায় রাখার সাথে সাথে ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার, বাদাম, সিড্স, ঘরোয়া কার্যকরী উপাদান যেমন আদা, হলুদ, রসুন এগুলো রোজকার খাদ্য তালিকায় রাখুন, পরিছন্নতা ও সোশ্যাল দূরত্ববিধি মেনে চলুন| সুস্থ থাকুন, সাবধানে থাকুন আর যেকোনো সময় যেকোনো সমস্যায় অনলাইন কন্সালটেশনের জন্য Spark.Live এ যোগাযোগ করুন|

ডায়েটিশিয়ান এবং ফিটনেস-ওয়েলনেস কোচ সোহিনী চক্রবর্তী চ্যাটার্জী

ডায়েটিশিয়ান সোহিনী চ্যাটার্জী কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে খাদ্য ও পুষ্টি বিষয়ে স্নাতকোত্তর করেন। তিনি দীর্ঘ সময় পুষ্টি বিজ্ঞানের একজন শিক্ষিকা হিসাবে কাজ করেছেন এবং কলকাতার নামীদামী হাসপাতালেও যুক্ত ছিলেন বহু বছর। বর্তমানে তিনি কলকাতার একটি বিখ্যাত সংস্থায় ফিটনেস-ওয়েলনেস কোচ হিসেবে নিযুক্ত রয়েছেন এবং তার পাশাপাশি অনলাইনে পুষ্টি ব্লগার হিসেবেও কাজ করে চলেছেন। বেশ কিছু ম্যাগাজিনে ডায়েট সম্পর্কিত তার লেখা নিয়মিত প্রকাশিত হয়।

Spark.Live-এর বিশিষ্ট ডায়েটিশিয়ান সোহিনী চক্রবর্তী চ্যাটার্জীর সঙ্গে অনলাইন কন্সালটেশনের জন্য লিংকটিতে বুক করুন-https://spark.live/consult/diet-pcod-heart-kidney-thyroid-pregnancy-advice-from-dietician-and-fitness-wellness-coach-sohini-chakraborty-bengali

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।