ডায়েটিশিয়ান দেবস্মিতা রায় নন্দীর কাছে রয়েছে ডায়েটের কিছু প্রশ্নের উপযুক্ত উত্তর (Dietitian Debosmita Roy Nandi has the right answers to some diet questions)

ডায়েট নিয়ে আমাদের নানান কৌতূহলের শেষ থাকেনা, আমরা অনেক সময় টিভিতে দেখে কিংবা সোশ্যাল মিডিয়াতে দেখে ডায়েট সম্পর্কে নানান ধারণা করতে শুরু করি, কিন্তু আপনাদের জন্য Spark.Live এর বিশিষ্ট স্বনামধন্য ডায়েটিশিয়ান দেবস্মিতার কিছু সহজ উত্তর রইলো যার দ্বারা আপনারা আপনাদের বিভিন্ন কৌতূহলের সুরাহা পাবেন, আসুন তাহলে দেখে নেওয়া যাক-

প্রশ্ন ১) ব্যালান্স ডায়েট ঠিক কাকে বলা হয়?

  • উত্তর- সুষম খাদ্যাভ্যাস বা ব্যালান্সড ডায়েট বলতে বোঝায় যে সকল খাদ্যের মধ্যে সমস্ত প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান অর্থাৎ কার্বোহাইড্রেট,প্রোটিন, ফ্যাট, ভিটামিন, খনিজ পদার্থ ইত্যাদি সঠিক পরিমাণে রয়েছে। সুষম খাদ্যাভ্যাসের জন্য খাবার যতটা গুরুত্বপূর্ণ, সারাদিনে পর্যাপ্ত পরিমাণে জল খাওয়াও সুষম পুষ্টির ততটাই গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ। আমাদের স্বাস্থ্য ভাল রাখার ক্ষেত্রে এটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এটি আমাদের দেহের সঠিক ক্রিয়াকলাপের জন্য বেশ প্রয়োজনীয়, এছাড়াও সুষম খাদ্য দেহে তাপশক্তি বজায় রাখতে সাহায্য করে। আমরা যদি নিয়মিত সুষম খাদ্য গ্রহণ করি তাহলে আমাদের অসুস্থ হওয়ার সম্ভবনা কমে যায়, সুষম খাদ্যও আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।
  • ভারসাম্যযুক্ত ডায়েটের গুরুত্ব হল এই যে বেশিরভাগ মানুষ বিশ্বাস করেন যে সুষম খাদ্য অবশ্যই স্বাস্থ্যকর জীবনযাত্রার মূল চাবিকাঠি। আমরা যখন সর্বদা সুষম খাদ্য গ্রহণ করি তখন আমরা আমাদের শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যও সুন্দরভাবে বজায় রাখতে সমর্থ হই। সুষম ডায়েটে যথাযথ খাবারগুলি অবশ্যই যথাযথ পরিমাণে খাওয়া উচিত। একটি নিখুঁত সুষম খাদ্যভ্যাস কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন, চর্বি, খনিজ, উচ্চ ফাইবার সামগ্রী,জল, ভিটামিন এবং আরও অনেকগুলি পরিপোষক পদার্থ দিয়ে গঠিত।

প্রশ্ন ২) ডায়েট থেকে চিনি সম্পূর্ণ বর্জন করা কতটা সঠিক?

Spark.Live এ স্বনামধন্য ডায়েটিশিয়ান দেবস্মিতা রায় নন্দীর সঙ্গে অনলাইন কন্সালটেশনের জন্য লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/diet-holds-the-key-to-good-health-debosmita-roy-nandi-bengali
  • উত্তর- আমাদের নিত্য দিনের খাবারে সাধারণত চিনি ব্যবহৃত হয়, তবে বাস্তবে এটি আমাদের পক্ষে খুব একটা স্বাস্থকর নয়। প্রথমেই জানতে হবে চিনির বিভিন্ন ধরণ সম্পর্কে। যেমন- কৃত্রিম চিনি, আখ থেকে তৈরি স্ফটিকীকরণ বা দানাদার চিনি এবং প্রাকৃতিক চিনি অর্থাৎ খাবার থেকে পাওয়া শর্করা। আমাদের নিত্যভোজ্য চিনি হল দানাদার চিনি যা সাধারণত রান্নার সময় ব্যবহার করা হয়, কৃত্রিম চিনি অর্থাৎ ‘সুগার-ফ্রি’ চিনি, আর সবজি, ফল ইত্যাদিতে থাকে প্রাকৃতিক চিনি বা শর্করা। আখ থেকে তৈরি করা চিনি শরীরের জন্য সবথেকে উপকারী। তবে প্রক্রিয়াজাত ও প্যাকেটজাত খাবারে থাকা চিনি আসে প্রধানত উচ্চমাত্রায় ফ্রুক্টোজযুক্ত কর্ন সিরাপ থেকে, যা শরীরের জন্য সর্বাধিক ক্ষতিকর। তবে আপনি কি কখনও ভেবে দেখেছেন যে আপনি যদি চিনি পুরোপুরি খাওয়া বন্ধ করে দেন তবে আপনার দেহের কী হবে? চিনি আপনার মস্তিষ্কের ওপিওয়েড রিসেপ্টরগুলি সক্রিয় করার কাজ করে যা আপনার স্নায়বিক সিস্টেমটিকে প্রস্ফুটিত করে, চিনি আমাদের খাদ্য রসনা তৃপ্তি করে, চিনি নিম্ন রক্তচাপকে স্বাভাবিক হতে সাহায্য করে, তাছাড়াও শরীরে দ্রুত শক্তির যোগান ব্যাহত হতে পারে, ত্বকের ভারসাম্য রক্ষায় বাধা আসতে পারে।
  • অন্যদিকে চিনির মাত্রাতিরিক্ত ব্যবহার আমাদের শরীরে যেসমস্ত ক্ষতিকারণ প্রভাব ফেলতে পারে তা হল – দেহের ওজন বৃদ্ধি করে, ওজন কমাতে সহায়ক স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাসে চিনি বাদ দেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। তবে এই পদ্ধতি আমাদের শরীরের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে। কারণ গ্লুকোজ তৈরি করার জন্য শরীরে চিনি প্রয়োজন। এছাড়া ডায়াবেটিস, হার্টের সমস্যার ঝুঁকি বাড়ায়, দেহে রক্ত চলাচলে বিগ্ন ঘটায়, ত্বকে বলিরেখা আসে, মনে বিষন্নতার সঞ্চার করে।
  • তাই আমাদের উচিত প্রতিদিনের ডায়েটে নির্দিষ্ট মাত্রায় চিনি সেবন করা( বিশেষ ক্ষেত্রে পরিত্যাগ করতে হবে), মাত্রাতিরিক্ত চিনি সেবন সম্পূর্ণরূপে বর্জন করা একান্ত কাম্য।

প্রশ্ন ৩) কার্বোহাইড্রেট খাওয়া কমিয়ে ফেললে কি দ্রুত ওজন কমানো সম্ভব?

Spark.Live এ স্বনামধন্য ডায়েটিশিয়ান দেবস্মিতা রায় নন্দীর সঙ্গে অনলাইন কন্সালটেশনের জন্য লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/diet-holds-the-key-to-good-health-debosmita-roy-nandi-bengali
  • উত্তর- লো-কার্বোহাইড্রেট (লো-কার্ব) ডায়েট ওজন হ্রাসের জন্য জনপ্রিয়। কম কার্বোহাইড্রেট খাওয়ার সুপারিশ করার মূল কারণ হ’ল কার্বোহাইড্রেট ওজন বাড়াতে সাহায্য করে। কার্বোহাইড্রেটের প্রধান উৎস হ’ল শস্য জাতীয় খাবার যেমন রুটি, ভাত,পাস্তা, সুজি, বার্লি ইত্যাদি। লো-কার্ব ডায়েটে সাধারণত এই খাবারগুলির পরিমাণ সীমিত করার পরামর্শ দেওয়া হয়। তবে এটি বিভ্রান্তিকর, কারণ ওজন বৃদ্ধি মোটামুটি কিলোজুল (বা শক্তি) এর অতিরিক্ত মাত্রা থেকে আসে, যা যেকোনও খাদ্য উৎস থেকে আসতে পারে। মূলত শস্য জাতীয় খাদ্যর সাথে ওজন বৃদ্ধির একটা সম্পর্ক থাকে। স্বাস্থ্যকর ওজন বজায় রাখার সর্বোত্তম উপায় হ’ল একটি ভারসাম্যযুক্ত খাদ্য যা একসাথে ফল এবং শাকসব্জী, গোটা শস্য, চর্বিযুক্ত মাংস এবং বিকল্পগুলি, ডাল এবং কম চর্বিযুক্ত দুগ্ধজাত জাতীয় দুধ, দই এবং পনির যেন প্রতিদিনের খাদ্যাভাসে সাথে অন্তর্ভুক্ত থাকে।খুব স্বল্প-কার্বোহাইড্রেট ডায়েট থেকে আপনার প্রতিদিনের পুষ্টি চাহিদা পূরণের সম্ভাবনা কম।
  • খুব কম কার্বোহাইড্রেটের সম্ভাব্য দীর্ঘমেয়াদী প্রভাবগুলি হল-
  • ওজন আপাতভাবে কমে যায় কিন্তু দ্রুত ফিরে আসে,
  • অন্ত্রের সমস্যা হয় এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের ঝুঁকি বাড়িয়ে তোলে,উচ্চ কোলেস্টেরল, পেটের স্থূলত্ব এবং স্থূলতা সম্পর্কিত ব্যাধির ঝুঁকি বাড়ায়,কিডনির সমস্যা,
  • অস্টিওপোরোসিসের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

প্রশ্ন ৪) PCOD রয়েছে সে সকল মহিলাদের তাদের কি ধরণের ডায়েট ফলো করা উচিত?

  • উত্তর- PCOD বা পলিসিস্টিক ওভারি ডিজিজ, এক ধরণের হরমোন জনিত রোগ যা প্রতি দশ জন মহিলার মধ্যে একজনকে প্রভাবিত করে। এটি এমন একটি শারীরিক অবস্থা যেখানে কোনও মহিলার ডিম্বাশয়ে অনেকগুলি ছোট সিস্ট দেখা যায়। অপ্রত্যাশিত হরমোনাল আচরণ ছাড়াও এই অবস্থাটি ডায়াবেটিস, বন্ধ্যাত্ব, ব্রণ এবং অতিরিক্ত চুলের বৃদ্ধি ঘটায়। এটি একটি সাধারণ রোগ তবে সঠিক কোনও নিরাময় নেই। বেশিরভাগ PCOD রোগীকে ওজন কমানোর এবং নিয়মিত অনুশীলন করার পরামর্শ দেওয়া হয় যা লক্ষণগুলি নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে। সঠিক খাদ্যাভ্যাস,ব্যায়াম ও স্বাস্থকর জীবনযাপনের মাধ্যমে এই রোগের প্রতিরোধ গড়ে তোলা সম্ভব। PCOD তে মূলত ডায়েটে যে সমস্ত পরিবর্তন আনতে হবে সেগুলো হলো-
  • কমপ্লেক্স কার্বোহাইড্রেট যুক্ত খাদ্য অর্থাৎ ঢেঁকি ছাটা চাল, ব্রাউন ব্রেড, মাল্টিগ্রেইন আটা খেতে হবে, ময়দা বর্জন করতে হবে, চিনি গ্রহনের পরিমান সীমিত করতে হবে, পর্যাপ্ত পরিমানে ফাইবার(শাকসবজি) ও প্রোটিন সমৃদ্ধ খাওয়ার(ডিম, মাছ, মাংস, দুধ) খেতে হবে, এন্টিঅক্সিডেন্ট ও ভিটামিন সমৃদ্ধ খাওয়ার রাখতে হবে খাদ্যতালিকায়,বিভিন্ন ধরণের বাদাম ও বিভিন্ন মরসুম ভিত্তিক ফল পর্যাপ্ত পরিমানে রাখা দরকার, তাছাড়া ও প্রচুর পরিমানে জল পান করতে হবে।

প্রশ্ন ৫) বাচ্চাদের ওবেসিটি কেন হয় এবং তার প্রতিকার সম্পর্কে যদি কিছু বলেন?

Spark.Live এ স্বনামধন্য ডায়েটিশিয়ান দেবস্মিতা রায় নন্দীর সঙ্গে অনলাইন কন্সালটেশনের জন্য লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/diet-holds-the-key-to-good-health-debosmita-roy-nandi-bengali

উত্তর- চাইল্ড ওবেসিটি বা শিশুদের ওজন বৃদ্ধি বর্তমান একটি গুরুত্বর সমস্যা। যখন বয়স ও উচ্চতা অনুপাতে শিশুর ওজন স্বাভাবিকের থেকে বেশি হয় সেই অবস্থাকে ওবেসিটি বলে। বিভিন্ন কারণে শিশুরা অতিরিক্ত ওজন এবং স্থূল হয়ে ওঠে। সর্বাধিক সাধারণ কারণগুলি হ’ল জেনেটিক কারণ, শারীরিক ক্রিয়াকলাপের অভাব, অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভাস বা এই কারণগুলির সংমিশ্রণ। হরমোনজনিত সমস্যার কারণে খুব কম ক্ষেত্রেই ওজন বেশি হয়। যেসব শিশুদের বাবা-মা বা ভাই-বোনদের ওজন বেশি, তাদের ক্ষেত্রে ওজন বাড়ার ঝুঁকি বেশি হতে পারে, তবে এটি খাওয়া এবং নিত্যদিনের ক্রিয়াকলাপের অভ্যাসের উপর নির্ভর করে। শিশুর ডায়েট অর্থাৎ প্রতিদিনের খাদ্যাভ্যাস ওজন নির্ধারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

যেমন প্রচুর শাকসব্জী, ফলমূল এবং শস্য জাতীয় খাবার খাদ্য তালিকায় রাখতে হবে,কম ফ্যাটযুক্ত দুধ বা দুগ্ধজাতীয় খাদ্য অন্তর্ভুক্ত করুন, প্রোটিনের জন্য চর্বিযুক্ত মাংস, হাঁস-মুরগি, মাছ, ডাল এবং মটরশুটি খাদ্যতালিকায় রাখতে হবে,
নির্দিষ্ট পরিমানে খাদ্য পরিবেশন করতে হবে, প্রচুর জল পান করতে হবে,চিনি-মিষ্টিযুক্ত পানীয় বর্জন করতে হবে স্যাচুরেটেড ফ্যাটের ব্যবহার সীমিত করা দরকার। এইভাবে কিছু সাধারণ নিয়মের মধ্যে দিয়ে শিশুদের ওজন কমানো সম্ভব।

ডায়েট সম্পর্কিত যেকোনো সমস্যার সমাধানের জন্য আপনারা এবার থেকে Spark.Live এ যোগাযোগ করতে পারেন স্বনামধন্য ডায়েটিশিয়ান দেবস্মিতা রায় নন্দীর সঙ্গে, Spark.Live এ অনলাইন কন্সালটেশনের মাধ্যমে খুব অল্প মূল্য ব্যায় করেই সঠিক ডায়েট চার্টের মাধ্যমে আপনারা সুস্থ্য সুন্দর জীবনযাত্রার অধিকারী হয়ে উঠতে পারেন। Spark.Live এ স্বনামধন্য ডায়েটিশিয়ান দেবস্মিতা রায় নন্দীর সঙ্গে অনলাইন কন্সালটেশনের জন্য লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/diet-holds-the-key-to-good-health-debosmita-roy-nandi-bengali

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।