গুরুত্বপূর্ণ কিছু ডায়েটের প্রশ্নের উপযুক্ত উত্তর দিয়েছেন ক্লিনিকাল ডায়েটিশিয়ান সুমনা চ্যাটার্জী(ব্যানার্জী)(Clinical dietitian Sumana Chatterjee (Banerjee) answers some important dietary questions)

  • by

সুস্থ্য থাকার জন্য প্রয়োজন সঠিক লাইফস্টাইল এবং উপযুক্ত ডায়েটের, কিন্তু আমরা অনেকেই ডায়েট সম্পর্কে বেশ কিছু ভুল ধারণা পোষণ করে চলি। আপনাদের সকলের জন্য কিছু জরুরি প্রশ্ন সাজানো হয়েছে এবং তার উত্তর নিয়ে হাজির হয়েছেন বিশিষ্ট ক্লিনিকাল ডায়েটিশিয়ান সুমনা চ্যাটার্জী(ব্যানার্জী), আসুন একটু দেখে নেওয়া যাক।

১) থেরাপিউটিক ডায়েট সম্পর্কে যদি বিশদে কিছু বলেন?

আজই লগ-ইন করুন-https://spark.live/consult/category/all/

উত্তর- থেরাপিউটিক ডায়েট হল মূলত ডিজিস স্পেসিফিক মানে রোগ ভিক্তিক খাদ্য নির্বাচনের পদ্ধতি যার সাহায্যে আমরা রোগীর পুষ্টিগত চাহিদার ভিত্তিতে তাকে তার প্রয়োজনীয় খাদ্যের তালিকা প্রদান করে থাকি। মূলত যে সমস্ত রোগের জন্য এই প্রকার ডায়েট জরুরী সেগুলো হলো ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপ, হার্ট ফেলিওর, কিডনি ফেলিওর ইত্যাদি। এই জাতীয় ডায়েটের মূল উদ্দেশ্য হলো-

থেরাপিউটিক ডায়েটের মাধ্যমে আমরা রোগীর ডায়েট জনিত ঘাটতি সংশোধন করে রোগীর জন্য সঠিক খাদ্য নির্বাচনে সাহায্য করে থাকি।
রোগীর খাদ্যাভ্যাসের উপর ভিত্তি করে তার শারীরিক চাহিদা অনুযায়ী তার খাদ্য তালিকা প্রস্তুত করা হয়।
রোগীকে তার শারীরিক চাহিদা সম্পর্কে অবগত করা এবং তাকে প্রস্তাবিত খাদ্য তালিকার প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে জানানো।

২) হরমোনাল সমস্যায় সঠিক ডায়েট কতটা কার্যকরী ভূমিকা নিতে পারে?

উত্তর- হরমোনাল সমস্যায় সঠিক ডায়েট নির্বাচন করা, আমাদের এন্ডোক্রাইনাল বা অন্তঃক্ষরা গ্রন্থি গুলির কার্যকারিতা এবং আমাদের সার্বিক স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কারণ এই ধরণের সমস্যায় ঘুম থেকে বিপাক, হৃদস্পন্দন থেকে পাচন ইত্যাদি দৈহিক পদ্ধতিতেও প্রভাব ফেলতে পারে।
প্রথমত, স্ট্রেস আমাদের এন্ডোক্রাইনাল সিস্টেমকে প্রভাবিত করে, মূলত অ্যাড্রিনাল গ্ল্যান্ডকে। তাই যোগাসন, ধ্যান, ছবি আঁকা বা ভালোলাগার যে কোনো কাজের মধ্যে নিজেকে জরিয়ে ফেলে স্ট্রেসকে দূরে রাখা খুব প্রয়োজন। দৈহিক ব্যায়াম আমাদের হরমোনাল লেভেলকে নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। এ ছাড়াও প্রসেসড ফুড, চিনি, অস্বাস্থ্যকর ফ্যাট জাতীয় খাদ্য বর্জন করতে হবে।
হরমোনাল সমস্যায় আমাদের খাদ্য তালিকার অন্তঃভুক্ত করতে হবে ফল, সবজি এবং কোয়ালিটি প্রোটিন জাতীয় খাদ্য এবং এর সাথে রাখতে হবে ভালো ফ্যাট, অ্যামিনো অ্যাসিড, মাছ, মাংস(মুরগি), ডিম যেমন রাখতে হবে তেমনই ওটস্, বিনস্, ডাল, বাদাম এবং অঙ্কুরিত ডাল রাখা যেতে পারে এছাড়া ফল সবজি ও যথেষ্ট পরিমাণে রাখা প্রয়োজন।

আরও পড়ুন-ডায়েটিশিয়ান কোয়েল পাল চৌধুরীর কাছে রয়েছে ডায়েটের বিশেষ কিছু প্রশ্নের উপযুক্ত উত্তর(Dietitian Koyel Pal Chowdhury has suitable answers to some special diet questions)

৩) শিশুদের ওবেসিটি থেকে দূরে থাকতে কি কি করণীয়?

আজই লগ-ইন করুন-https://airtable.com/shryf81ktoOPnmANa

উত্তর- শিশুদের ওবেসিটির সম্ভাবনা অনেকটাই কম থাকে যদি তাকে তার জন্মের প্রথম ৬ মাস শুধুমাত্র মায়ের দুধ পান করানো হয়। কিন্তু ৬-১২ মাস যদি অতিরিক্ত পরিমাণে ফ্যাট এবং শর্করা জাতীয় খাদ্য খাওয়ানো হয় তাহলে তার ওজন বৃদ্ধির সম্ভাবনা অনেকটাই বেড়ে যায়, তাই এই জাতীয় খাদ্য গ্রহণের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করা খুব প্রয়োজন। প্রাক বিদ্যালয়গামী শিশুদের ক্ষেত্রে টোটাল এনার্জির ৩০% ফ্যাট দিতে হবে, আর ২ বছরের বাচ্চাদের জন্য টোটাল এনার্জির ৩০% এর মধ্যে রাখতে হবে। স্যাচুরেটেড ফ্যাট দেওয়া যেতে পারে টোটাল এনার্জির মাত্র ১০%। শিশুদের বৃদ্ধি ও বিকাশের জন্য ফ্যাট একটি অতি প্রয়োজনীয় নিউট্রিয়েন্ট কিন্তু অতিরিক্ত ফ্যাট, ভাজা খাবার, কেক, পেস্ট্রি, কোল্ড ড্রিঙ্ক জাতীয় খাবার শিশুদের খাদ্য তালিকা থেকে দূরে রাখাই ভালো। ফ্রি হ্যান্ড এক্সসারসাইস এবং খেলাধুলার মাধ্যমে শিশুদের ওবেসিটি থেকে দূরে রাখা যেতে পারে সহজেই।

৪) বর্তমান সময়ে রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলার জন্য কি ধরণের ডায়েট জরুরি?

উত্তর- বর্তমান সময়ে আমরা যে ভাইরাস নিয়ে লড়ছি শুধুমাত্র তার প্রতিরোধের জন্য নয় আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বা ইমিউনিটি পাওয়ার বাড়িয়ে তোলা খুব প্রয়োজনীয়। তার জন্য মূলত যা যা মেনে চলতে হবে তা হল-

ফল, সবজী, ডাল(মুসুর, বিনস্), বাদাম এবং শস্যদানা(ভুট্টা, মিলেট, ওটস্, গম, ব্রাউন রাইস, আলু, ওল, কচু), আমিষ জাতীয় খাদ্য(মাংস, মাছ, দুধ, ডিম)।
অন্তর্বর্তী খাদ্য বা স্নাক্স হিসেবে ফল, সবজি, স্যালাড, অঙ্কুরিত ছোলা, মুগ, মটর রাখা যেতে পারে, বেশি মিষ্টি নোনতা খাবার বা ভাজা খাবার বাদ দিতে হবে।
ফল বা সবজি বেশি সিদ্ধ করা যাবে না তাহলে তার মধ্যে থাকা ভিটামিন গুলি নষ্ট হতে পারে।
প্রতিদিন ৮-১০ গ্লাস জল খেতে হবে।
বাজারজাত ফলের রস,চা,কফি বর্জন করতে হবে।

আরও পড়ুন-লকডাউনে বাড়িতে থেকে ওজন বেড়ে যাচ্ছে? জেনে নিন ডায়েট করে কিভাবে ওজন নিয়ন্ত্রণ করবেন(Is lockdown resulting your weightgain? Learn how to control weight by dieting)

৫) গ্যাস্ট্রিকের সমস্যায় কি ধরণের খাবার খেলে উপকার মিলতে পারে?

আজই লগ-ইন করুন-https://spark.live/consult/category/all/

উত্তর- গ্যাসট্রিক সমস্যায় প্রথমত যে নিউট্রিয়েন্টটি গুরুত্বপূর্ণ তা হল প্রোটিন কারণ এটি একমাত্র ক্ষত নিরাময়ে সাহায্য করে, তাই প্রতি কেজি ওজনের জন্য ১ গ্রাম করে প্রোটিন আবশ্যক তার মধ্যে মাখনতোলা দুধ, ডিম, সেদ্ধ মাছ, মুরগীর মাংস, কুচি করা পাঁঠার মাংস দেওয়া যেতে পারে। শর্করা জাতীয় খাদ্যের মধ্যে সহজ পাচ্য শর্করা যেমন- সুজি, ভাত, ময়দা, সাবু প্রভৃতি দেওয়া যেতে পারে।
প্রচুর ফাইবার যুক্ত খাদ্য যেমন শাকসবজি, ফল খাবারের মধ্যে রাখতে হবে।
এই সময় B-vitamin এর অভাব হতে পারে মূলত B¹² এর অভাবে অ্যানিমিয়া দেখা দিতে পারে, তাই প্রাণীজ প্রোটিন খাদ্য যেমন- ডিম, দুধ, মাছ, মাংস খাদ্যের মধ্যে রাখতে হবে।
প্রয়োজনো B-vitamin ওষুধ নিতে হতে পারে।
গ্যাসট্রিক সমস্যায় মুলত অতিরিক্ত ঠাণ্ডা বা গরম, অতিরিক্ত তেল মশলা দেওয়া খাবার না রাখাই ভালো।

৬) আপনার তরফ থেকে আমাদের পাঠক পাঠিকাদের জন্য কিছু ডায়েট টিপস?

উত্তর- পাঠক-পাঠিকারা তাদের ডায়েট সম্পর্কে অনেকটাই সচেতন তবুও বলে রাখার কয়েকটি বিষয় থেকেই যায় –
যে কোনো প্যাকেটজাত খাবার কেনার আগে অবশ্যই তার নিউট্রেটিভ ভ্যালু দেখে নেবেন প্রধাণত স্যাচুরেটেড/ ট্রান্সফ্যাট কতটা আছে তা দেখা অবশ্যই কর্তব্য।
বাজার চলতি ওজন কমানোর সাপ্লিমেন্ট কিনে খাওয়ার আগে জেনে নিন আদৌ সেটা আপনার কতটা প্রয়োজন।
আমাদের অনেকের ধারণা আছে কী খেলে ওজন কমবে? কিন্তু এটা জানতে হবে খাবার খেলে ওজন কমে না, খাবার থেকে আমরা এনার্জি বা ক্যালোরি পাই কিন্তু তা পর্যাপ্ত পরিমাণে খরচ না করলে আমাদের ওজন বাড়ে, তাই কায়িক পরিশ্রম অত্যন্ত জরুরি।

ক্লিনিকাল ডায়েটিশিয়ান এবং সার্টিফায়েড ডায়াবেটিক এডুকেটর সুমনা চ্যাটার্জী(ব্যানার্জী)

সুমনা চ্যাটার্জী(ব্যানার্জী) একজন ক্লিনিক্যাল নিউট্রিশানিস্ট এবং একজন সার্টিফাইড ডায়াবেটিক এডুকেটর‌। বিগত ৩ বছর ধরে তিনি একজন স্বনামধন্য Endocrinologist এর সাথে কাজ করেছেন। তিনি M.Sc করেছেন [KPC Medical College (IGNOU)] থেকে। তিনি মূলত তার ক্লায়েন্টদের পরামর্শ দেন যে কিভাবে ডায়াবেটিসে গ্লুকোজ লেভেল নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়, পাশাপাশি তাদের স্বাস্থ্যের সমস্যা গুলি অনুযায়ী উপযুক্ত ডায়েট চার্ট প্রস্তুত করে দেন।

তার মতে ডায়েটের মাধ্যমে শুধুমাত্র ওজন কমানো যায় তা কিন্তু নয়, বরং যারা ডায়াবেটিস, থাইরয়েড, হার্ট জনিত অসুখ, PCOS, অপুষ্টির মতো সমস্যায় ভুগছেন তাদের জন্য উপযুক্ত ডায়েট করা অত্যন্ত জরুরি। তাই উপযুক্ত ডায়েট চার্টের মাধ্যমে কিভাবে এই সমস্যা গুলিকে নিয়ন্ত্রণ রাখবেন সেই পথই দেখাচ্ছেন নিউট্রিশানিস্ট সুমনা তার ক্লায়েন্টদের। বর্তমানে ক্লিনিক্যাল নিউট্রিশানিস্ট এবং সার্টিফাইড ডায়াবেটিক এডুকেটর‌ সুমনা যুক্ত হয়েছেন Spark.Live এ, তাই আপনারা নিজেদের বাড়িতে বসেই অনলাইন সেশনের মাধ্যমে ডায়েটের সবরকম সমস্যার সমাধান করে নিতে পারবেন।

Spark.Liveসুমনা চ্যাটার্জী(ব্যানার্জী)-র সঙ্গে অনলাইন কন্সালটেশনের জন্যে লিংকটিতে ক্লিক করুন-https://spark.live/consult/therapeutic-diet-chart-by-nutritionist-sumana-chatterjee-bangla

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।