ব্ল্যাক হেডস দূর করার চারটি ঘরোয়া উপায় জেনে নিন (Best 4 Tips To Remove Black Heads)

  • by

আমরা যতই ফেসিয়াল করাই, যতই স্ক্র্যাব করি না কেন ব্ল্যাকহেডস সেই আবার ফিরে আসে. মাঝখান থেকে স্কিনের বারোটা বেজে যায়! আর ব্ল্যাকহেডস তুলতে যে ব্যাথাটা লাগে, তার কথা তো না হয় বাদই দিলাম. যদি কোনো ম্যাজিক থাকতো যাতে ব্ল্যাকহেডস -এর সমস্যা দূর করা যেত আর তাও ব্যাথা না পেয়ে, তাহলে কি দারুন হতো তাই না? তো চলুন জেনে নি ব্ল্যাক হেডস দূর করার কিছু ঘরোয়া পেস্ট সম্বন্ধে।

১.দারচিনি আর ওট্স-এর পেস্ট

এক চামচ দারচিনি পাউডার আর এক চামচ ওট্স মিশিয়ে সামান্য উষ্ণ জল দিয়ে একটা পেস্ট তৈরী করুন. খেয়াল রাখবেন পেস্টটা যেন খুব টাইট না হয় আবার খুব পাতলাও না হয়. এবারে আপনার মুখের যে যে জায়গায় ব্ল্যাকহেডস রয়েছে, সেখানে পেস্টটা দিয়ে সার্কুলার মোশনে ম্যাসাজ করুন. মিনিটখানেক এভাবে ম্যাসাজ করার পর ঠান্ডা জল দিয়ে মুখে ধুয়ে নিন. মাসে ২’বারের বেশি এটা ব্যবহার করবেন না.

২. লেবু, মধু আর চিনি-এর পেস্ট

একটা পাতিলেবু দু’ভাগ করে কেটে তার একভাগ নিয়ে রস করুন. এবার তার মধ্যে চিনির দানা আর মধু মিশিয়ে পেস্ট তৈরী করুন. এবার ওই পেস্টটা দিয়ে সার্কুলার মোশনে ম্যাসাজ করুন. সপ্তাহে একবার করে মাসখানেক এই পদ্ধতি প্রয়োগ করলে ব্ল্যাকহেডস-এর সমস্যা আর থাকবে না.

৩. ভ্যাসলিন

আমাদের সবার বাড়িতেই আর ভ্যাসলিন থাকেই, কিন্তু এই দু’টো জিনিস দিয়ে যে ব্ল্যাকহেডস তোলা যায়, সেটা কি আপনি জানতেন? মুখের যেখানে ব্ল্যাকহেডস রয়েছে সেখানে ভ্যাসলিন লাগান আর তার ওপরে লাগিয়ে নিন. এবারে একটা গরম তোয়ালে দিয়ে মুখ ঢেকে রাখুন, যতক্ষণ পর্যন্ত তোয়ালেটা ঠান্ডা না হচ্ছে ততক্ষন রাখতে হবে. এবারে টিসু পেপার দিয়ে ভালো করে মুখ থেকে ভ্যাসলিন মুছে তুলো দিয়ে মুখ পরিষ্কার করে নিন.

৪. ওট্স, দই আর মধু-এর পেস্ট

ওট্স, দই, আমন্ড অয়েল আর ওট্স (সব উপকরণ গুলিই ২ চামচ করে নেবেন. ভালো করে মিশিয়ে পেস্ট তৈরী করে নিন. এবার ১-২ মিনিট ভালো করে স্ক্র্যাব করে নিন. যদি আপনার স্কিন খুব বেশি সেনসিটিভ হয় তাহলে স্ক্র্যাব করবেন না, তার বদলে এই পেস্টটা মাস্কের মতো করে ৬-৭ মিনিট মুখে লাগিয়ে রাখুন. এবারে উষ্ণ জল দিয়ে ভালো করে মুখ ধুয়ে নিন. সপ্তাহে ২ বার করুন.

উপরে যা যা উপায় বলা হল তার মধ্যে থেকে আপনার সুবিধা মতো একটা পদ্ধতি বেছে নিন. আর দেখুন কিভাবে ম্যাজিকের মতো উধাও হয়ে যায় আপনার ব্ল্যাক হেডস. আমাদের জানাতে ভুলবেন না কোন পেস্টটা লাগিয়ে আপনি উপকার পেলেন.

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।