মহাশিবরাত্রিতে মহাদেবের কৃপা পেতে মেনে চলুন নিয়মগুলি (Benefits of the rituals followed on the Shivratri purpose)

  • by

প্রচুর মেয়েরা আছেন যারা শিবরাত্রি ব্রত করেন। তবে অনেকের ধারণা আছে যে শিবরাত্রি ব্রত খালি মেয়েরাই করেন এটি ঠিক নয় ।নারী-পুরুষ নির্বিশেষে করতেই পারেন। সেই ভাবেই দেখতে গেলে প্রতিবছর ফাল্গুন মাসের কৃষ্ণপক্ষের চতুর্দশী তিথিতে এই মহা শিবরাত্রি পালিত হয়।

দেখে নেওয়া যাক শিবরাত্রি পূজোর সময় সূচি-

1। বাংলা পঞ্জিকা মতে ইংরেজির 21শে ফেব্রুয়ারি এবং বাংলায় 8ই ফাল্গুন বিকেল 05: 41 মিনিটে তিথী লাগছে এবং ইংরেজির 22 শে ফেব্রুয়ারি এবং বাংলার 9 ফাল্গুন 06:39 ছেড়ে যাচ্ছে।

2। শিবের পুরাণে বলা আছে কালো তিল ভেজানো জলের স্নান করলে শরীর শুদ্ধ হয় ।বলা হয় শিবরাত্রি ব্রত পালনের সময় নিজেকে সংযত রাখতে হয়। আর তাই স্নান করে উঠে সংকল্প করা জরুরী।

3। শিব ও পুরাণে বলা রয়েছে চতুর্দশী তিথিতে শিবরাত্রির পালিত হলেও ,প্রস্তুতি শুরু করতে হবে ত্রয়োদশীর দিন থেকেই ।সেই অনুসারে ঠিক তার আগের দিন মানে ত্রয়োদশী দিন একবেলা নিরামিষভোজন করতে হয় ।এরপর চতুর্দশী দিন খুব সকাল সকাল উঠে কালো তিল ভেজানো জলের স্নান করতে হয়।

4। চতুর্দশীর সারাদিন নিজের মন ও শরীরকে সুস্থ রাখার জন্য সংকল্প করার কথা বলা হয়। এর জন্য সারাদিন উপবাস করে থাকতে হয় ।এবং মনে মনে ওম নমঃ শিবায় মন্ত্র জপ করতে হয় ।মহাদেব যেন আপনার সংকল্প রক্ষা করেন ,সেই আশীর্বাদ প্রার্থনা করতে হয়।

5। মহাদেবের পুজোর উপকরণ হিসেবে গঙ্গাজল,ঘি,দই, মধু, দুধ,ধুতরা ফুল, ধুতরা ফল আকুন্দ ফুল, বেলপাতা ,নীলকন্ঠ ফুল, শ্বেতচন্দন প্রদীপ, ধুপ ও সন্দেশ সহযোগে। তবে আজকাল এই সমস্ত জিনিস দিয়ে দুপুরেই শিবের মাথায় জল ঢেলে উপবাস ভঙ্গ করেন সকলে। তবে শিবরাত্রি মানেই রাতের প্রথা ।তাই মহাদেবের আশীর্বাদ পেতে রাতের বেলায় উপবাস ভঙ্গ করুন।

6। আর পুজোর অর্ঘ্য নিবেদন করবেন কি করে, প্রথম প্রহরে দুধ দিয়ে স্নান করান আর বলুন ওম ঈশানয় নমঃ । দ্বিতীয় প্রহরে দই দিয়ে স্নান করান এবং ওম আরাধনায় নমঃ বলুন। তৃতীয় প্রহরে মহাদেব কে ঘি দিয়ে স্নান করান এবং ওই সময় উচ্চারণ করুন ওম বামদেবায় নমঃ। চতুর্থ প্রহরে মধুর সহযোগে স্নান করান এবং ওই সময় উচ্চারণ করুন ওম সদ্যজাতায় নমঃ। গঙ্গার জল দিয়ে মহাদেবকে স্নান করানোর সময় বলুন ওম নমঃ শিবায় নমঃ।

এইভাবে চার প্রহরে মহাদেবকে স্নান করানোর সময় মহাদেবের কাছে সৌভাগ্য, জ্ঞান ,বিদ্যা, অর্থ, সন্তান আরোগ্য কামনা করুন। আর এরপর যদি পারেন 108 টি মহাদেবের নাম জপ করুন ।না জানা থাকলে পাঠও করতে পারেন। মনে রাখবেন,কথিতে আছে মহাদেব কিন্তু অল্পতেই তুষ্ট হন। তাই ভক্তিভরে মহাদেবের আরাধনা করুন। তিনি নিশ্চয়ই আপনার মঙ্গল করবেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।