বয়ফ্রেইন্ড আর বেস্টফ্রেইন্ডের মধ্যে ঘনিষ্ঠতা বাড়ছে না তো?

  • by

আপনার প্রিয় বান্ধবীটি কি আপনার প্রেমিকের ওপর ভালো মতোই আগ্রহী মনে হচ্ছে? আর তাতেই বেজায় চটেছেন আপনি. মনে হচ্ছে বান্ধবী বা বয়ফ্রেন্ডকে একটু শাসানি দিয়ে বিষয়টির সমাপ্তি করবেন. আবার পরোক্ষনে এটাও ভয় পাচ্ছেন, যে হিতে বিপরীত না হয়ে যায়. যদি আপনি যেটা সন্দেহ করছেন, সেটির বাস্তবে কিছু মানে না থাকলে, দুজনকেই আপসেট করে দেবেন, আর তাতে বন্ধুত্ব আর প্রেম দুটি সম্পর্কেই পড়তে পারে চির.

তাই যা করবেন খুব ভেবে চিন্তে. যদি বুঝতে পারছে না যে আপনার বয়ফ্রেন্ড এনং আপনার বেস্ট ফ্রেন্ড দুজনের মধ্যেই জন্ম নিতে চলেছে, কোনো অযাচিত সম্পর্ক. তাহলে সেটা হ্যান্ডেল করুন স্মার্ট ওয়েতে.


যেমন-
১. আগে যেখানে আপনার সব কথা শেয়ার করতেন বান্ধবীটির সাথে, সেখানে পুরোপুরি জ্যোতি চিহ্ন টানুন. আপনার কোথায় যাচ্ছেন কি করছে, তা না বলে, বরং আপনার প্রতি আপনার বয়ফ্রেন্ড কতটা যত্নবান সেটি বলুন. পারলে একটু বানিয়েই বলুন.


২. সাময়িক একটু এভোয়েড করুন বান্ধবীকে. তার সব মেসেজের উত্তর নাইবা দিলেন. বরং বয়ফ্রেন্ডের সাথে হঠাৎ হঠাৎ বা অন্যান্য বন্দুর সাথে হঠাৎ কোনো প্ল্যানিং করে ঘুরে আসুন. কিন্তু কিছুই জানাবেন না বান্ধবীকে. আর নিজের ঘোরার ছবি শেয়ার করুন whatsapp স্টেটাস এ. ব্যাস বান্ধবী আপনার এভোয়েডের কারণ কিছুটা আঁচ করতে পারবে.

৩. একই জিনিস করুন বয়ফ্রেন্ডের সাথেও. নিজের অন্য কোনো পুরুষ বন্ধুর সাথে বেশি মেলামেশা শুরু করুন. তাতে সে একটু জেলাস হবে.

৪. নিজের বান্ধবী সম্পর্কিত কথাগুলি কম শেয়ার করুন বয়ফ্রেন্ডের সাথে. আর সে তার কথা তুল্লে একটু বিরক্তি প্রকাশ করুন. হাবেভাবে বোঝান, খুব একটা পছন্দ করছেন , তার সম্পর্কিত কথাগুলি.

5. সব জায়গায় নিজের বান্ধবীকে নিয়ে যাওয়ার প্রয়োজন নেই। কিছুটা সময় শুধু নিজেদের জন্য রাখুন। যেটা একান্ত ব্যক্তিগত। প্রেমিক যদি বলেও যে বান্ধবীকে নিয়ে এলে বেশ হয় তাহলে বেশ গম্ভীরভাবেই বলুন যে এই মুহূর্তটা আপনি তাঁর সঙ্গে একান্তে কাটাতে চান। আর সেখানে তৃতীয় কোনও ব্যক্তির উপস্থিতি আপনি বরদাস্ত করবেন না।

এইভাবে যদি দুজনেই নিজের ভুল বুঝে, দূরত্ব বজায় রাখে তো ভালো. অন্যথা নিজেই বুঝুন কি করবেন.

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।